বালুরঘাট জেলা আদালতের দুই আইনজীবীর বিরুদ্ধে আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ

0
19

নিজেস্ব সংবাদদাতা : – বালুরঘাট জেলা আদালতের দুই আইনজীবীর বিরুদ্ধে আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ এনে বালুরঘাট থানা, জেলা পুলিশ সুপার ও বালুরঘাট বার অ্যাসোসিয়েশন ও পশ্চিম বংগ কাউন্সিলের কাছে অভিযোগ দায়ের করলেন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদের এক সরকারি কর্মী৷

অমিত কুমার ধর নামে ওই সরকারি কর্মী গতকাল রাতে বালুরঘাট থানা, জেলা পুলিশ সুপার ও বার কাউন্সিলে দুই আইনজীবী গৌতম সরকার ও নির্মল সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। ওই সরকারি কর্মীর অভিযোগ তার নামে হাইকোর্টে মামলা রয়েছে, এমন মিথ্যে নথি দেখিয়ে একাধিকবারে মোট ৭ লাখ টাকা নেয় অভিযুক্তদের মধ্যে প্রধান আইনজীবী গৌতম সরকার।

মামলার বিষয়টি পুরোটাই মিথ্যে যখন বুঝতে পারেন সেই সময় থেকে ৭ লাখ টাকা ফেরতের জন্য বারবার ওই আইনজীবীর দ্বারস্থ হন ওই সরকারি কর্মী। কিন্তু টাকা ফেরত দিতে পুরোপুরি অস্বীকার করেন বলেই অভিযোগ অমিত কুমার ধরের। এমনকি তাঁর কাছ থেকে কোন টাকায় নেননি বলে জানান ওই আইনজীবী। এরপরই টাকা ফেরত সহ অভিযুক্ত আইনজীবীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পুলিশ প্রশাসনের দ্বারস্থ হন। এছাড়াও টাকা নেওয়ার কথাও পুরোপুরি অস্বীকার করেছেন অভিযোগ ওঠা আইনজীবী গৌতম সরকার।

প্রসঙ্গত, গত ৫ জুলাই জেলা পরিষদের প্রশাসনিক ওই সরকারি কর্মীর কাছে একটি হাইকোর্টের আইনজীবীর একটি চিঠি গিয়ে পৌঁছায়৷ যেখানে দেখা যায় একটি হাইকোর্টের মামলার কেস দেওয়া নাম্বার রয়েছে। সেই চিঠি অমিত ধরের পাশাপাশি বীরভূম জেলার পুলিশ সুপার সহ একাধিক জায়গায় পাঠানো হয়েছে। এদিকে অমিত ধরের বাড়ি বীরভূমে। কর্মসূত্রে তিনি বালুরঘাটে থাকেন। তাঁর নামে পারিবারিক দুটি মামলা রয়েছে। সেই মামলা দেখছিল আইনজীবী গৌতম সরকার। সেই সুবাদে অমিত ধরের বহু তথ্য তিনি জানতেন বলে অভিযোগ। অভিযোগকারীর আরও অভিযোগ, গত মাসের প্রথমের দিকে চিঠি পেয়ে গৌতম সরকার তাঁকে নিয়ে কলকাতা যান। হাইকোর্ট মামলার জন্য ৭ লাখ টাকা নেয়। এদিকে পরে অভিযোগকারী জানতে পারেন তার নামে যে মামলার নথি দেখা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যে। অন্যের মামলা তার নামে দেখানো হয়েছে। এরপরই টাকা ফেরত চান। কিন্তু টাকা ফেরত দেননি। তাই এনিয়ে তিনি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। টাকা ফেরত না পেলে আগামীদিনে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হবেন বলে তিনি জানিয়েছেন। অন্যদিকে পুরো ঘটনা খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা আদালতের বার আস্যোসিয়েশনের সম্পাদক বিদ্যুৎ রায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here