বিশ্বভারতীতে নিয়োগে বেনিয়ম, প্রাক্তন উপাচার্য দিলীপ সিংহ সহ তিনজনের ৫ বছর জেল

0
32

নিজস্ব প্রতিনিধি,বোলপুর: নিয়োগ সংক্রান্ত বেনিয়মের অভিযোগে বিশ্বভারতীর প্রাক্তন উপাচার্য, কর্মসচিব সহ অধ্যাপিকা মুক্তি দেবকে পাঁচ বছর কারাদণ্ডের নির্দেশ দিল বোলপুর মহকুমা আদালত।

পাশাপাশি ১ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছর কারাদণ্ডের নির্দেশ দেন অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা বিচারক অরবিন্দ মিশ্র।
রায় শোনার পর বিশ্বভারতীর প্রাক্তন উপাচার্য দিলীপ সিংহ বলেন, “আমি আমার আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলব। তাদের কথা মত উচ্চ আদালতে যাব।” যদিও এদিন উচ্চ আদালতে যাওয়ার জন্য অভিযুক্তদের জামিনের আবেদন খারিজ করে দেন বিচারক।

১৯৯৬ সালে বিশ্বভারতীতে তপশীলি জাতি, উপজাতি সংরক্ষণের আওতায় মুক্তি দেব নামে এক অধ্যাপিকা নিয়োজিত হয়েছিলেন৷ ২০০২ সালে তিনি যখন গবেষণা করতে আগ্রহী হন তখন দেখা যায় তাঁর স্নাতক ও স্নাতকোত্তরের সমস্ত শংসাপত্র ভুয়ো। এই শংসাপত্রগুলিতে স্বাক্ষর   রয়েছে বিশ্বভারতীর প্রাক্তন উপাচার্য দিলীপ সিংহ ও কর্মসচিব দিলীপ মুখোপাধ্যায়ের।

এই মর্মে ২০০৪ সালে তৎকালীন কর্মসচিব সুনীল সরকার একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে ৪৬৬, ৪৬৭, ৪৬৯, ৪৭১, ৪৭৪ আই পি সি ধারায় মামলা রুজু করে সি আই ডি ঘটনার তদন্ত শুরু করেন। পরে ১২০ বি ধারা যোগ করা হয়। বুধবার প্রাক্তন উপাচার্য, কর্মসচিব সহ অধ্যাপিকা মুক্তি দেবকে দোষী সাব্যস্ত করেন এ সি জে এম অরবিন্দ মিশ্র।

এদিন, তিনজনকেই ৫ বছর কারাদণ্ডের নির্দেশ দেওয়া হয়। পাশাপাশি ১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। অনাদায়ে আরও ১ মাস কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

জানা গিয়েছে, উপাচার্য দিলীপ সিংহের সময় বিশ্বভারতীতে একাধিক জনের নিয়মবহির্ভূত  ভাবে নিয়োগ হয়েছে। এদিন অনেক বিশ্বভারতীর কর্মীকে আদালতে উপস্থিত থাকতে দেখা যায়।
সি আই ডি-র বিশেষ আইনজীবী নবকুমার ঘোষ বলেন, “আগেও দোষীসাব্যস্ত করেছে আদালত। এদিন সাজা ঘোষণা করেন এ সি জে এম।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here