নিজস্ব প্রতিবেদন : সুন্দরবনে  নদীবাঁধ ভেঙে জলের তলায় হারিয়ে গেল ৩০টিরও বেশি বাড়িঘর। শুক্রবার ভোরে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বাসন্তী ব্লকের বাসন্তী পঞ্চায়েতের রাধাবল্লভপুর গ্রামের এই ঘটনায় এখনও কোনও হতাহতের খবর নেই। স্থানীয় সূত্রের খবর, আজ ভোর পাঁচটা নাগাদ সুন্দরবনের হোগল নদীতে জোয়ার চলছিল। তখনও ঘুম ভাঙেনি সব গ্রামবাসীর। এই অবস্থায় কেউ কিছু বুঝে ওঠার আগেই নদীবাঁধ ভেঙে গিয়ে গোটা রাধাবল্লভপুর গ্রাম গ্রাস করে ফেলে নদীর জল! প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়তে থাকে একের পর এক বাড়িঘর। ভেঙে পড়ে নদীর জলে ভেসে যায় সব। আচমকা এমন বিপর্যয়ে বাড়ির বাইরে বেরিয়ে আসেন লোকজন। অনেকেই আবার ঘুমন্ত অবস্থায় নদীর জোয়ারের জলে ভেসে যেতে থাকেন। স্থানীয়রা প্লাস্টিকের ড্রাম ফেলে কোনও রকমে তাদের উদ্ধার করেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

রাধাবল্লভপুর গ্রামের স্থানীয় বাসিন্দা রুনু জানালেন, অন্ধকার ছিল তখনও, ফজরের নামাজ পড়ে আবার একটু গিয়ে শুয়েছিলেন। আচমকা হুড়মুড় শব্দ বাড়ি ভেঙে পড়ার। ঘর থেকে বেরিয়ে দেখেন নদীর জলে ঘরবাড়ি ভেঙে ভেসে যাচ্ছে! সামনে তাঁর মেয়ের বিয়ে, তার সমস্ত প্রস্তুতি করা ছিল ঘরে, সবসুদ্ধ চলে গেল নদীগর্ভে। এলাকার মানুষের বাড়িঘর-সহ প্রয়োজনীয় সমস্ত জিনিস নদীগর্ভ গ্রাস করে নিয়েছে কয়েক মুহূর্তে। এলাকাবাসীরা আপাতত কোনওক্রমে প্রাণে বেঁচে ঠাঁই নিয়েছেন খোলা আকাশের নীচে। স্থানীয়দের দাবি, ঘটনার প্রায় ঘণ্টা চারেক পরে প্রশাসনের লোকজন ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছয়। কোনও উদ্ধারকাজে হাত লাগায়নি তারা।

ছবি ও তথ্য সংগৃহীত

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here