সচেতনতার জ্বলন্ত উদাহরণ শান্তিপুরে

0
107

নিজস্ব প্রতিনিধি :নদীয়া:- কেউ কখনও ফোন করেই হোক আর সামনাসামনিই হোক সাহায্যের জন্য ডাকলে রাতবিরেতেও ছুটে যাওয়া তাঁর অভ্যাস । দলবলও তৈরী করে ফেলেছে মানুষের সেবার কাজে ।

আসল নামটা শান্তিপুর তথা নদীয়া জেলার প্রায় ৯৫% মানুষই জানে না । বাইচুং নামেই সকলের কাছে পরিচিত । না একোন বাইচুং ভূটিয়া নয়, ইনি হলেন সেই বাইচুং যিনি দিনরাত বিভিন্নধরণের সচেতনতামূলক কাজ করার জন্য এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্ত ছুটে ছুটে বেড়ান ।

সম্প্রতি তিনি কিছু কিছু ইয়ং ছেলেদেরকেও তাঁর সাথে মানুষের সেবা ও সচেতনতার জন্য কাজ করতে উদ্বুদ্ধ করেছেন এবং এইভাবে গঠিত করেছেন একটা সামাজিক দল । এই শীতের মরসুমে পিকনিক করার হিড়িক পড়ে মানুষের ।

বাইচুং আর তাঁর সঙ্গীরা নিজেরাই খরচ করে শালপাতার থালা ও কাগজের গ্লাস্ নিয়ে পৌঁছে যান সেইসকল পিকনিক স্পটে, সেখানে পৌঁছে তাঁরা যদি দেখেন যে – যাঁরা পিকনিক করছে তাঁরা প্লাসটিকের কিংবা থার্মোকলের থালা, বাটি ও গ্লাস ব্যবহার করছেন তৎক্ষণাৎ তাঁদের প্লাসটিকের অথবা থার্মোকলের যেকোন জিনিস ব্যবহারে শারীরিক এবং সামাজিক ক্ষতির কথা বুঝিয়ে তাঁদের নিয়ে আসা শালপাতার থালা ও কাগজের গ্লাস দিয়ে যান ।

এহেন সচেতনতা বোধহয় বাইচুং-এর পক্ষেই সম্ভব । মানুষ রেগে তো যান-ই না বরং সবকিছু বুঝে লজ্জিত হয়ে তাঁদেরকে পিকনিকে আমন্ত্রন জানান কিন্তু বাইচুং ও তাঁর দলবল আবার ছোটেন তাঁদের পরবর্তী সমাজ সচেতনতার অভিষ্ট লক্ষ্যে । তাঁরাও জানে মানুষও তাঁদের সঙ্গেই থাকবে ।

আমরাও বাইচুং এবং তাঁর সঙ্গীদের এই সমাজ সচেতনতার কাজের জন্য আন্তরিক অভিনন্দন জানাই । এবার জেনে নেওয়া যাক বাইচুং – এর আসল অথবা অফিসিয়াল্ নামটা । তিনি হলেন বিশ্বজিৎ রায় ওরফে বাইচুং যিনি এই মূহূর্তে শান্তিপুরে সচেতনতা এবং মানবিকতার জ্বলন্ত উদাহরণ ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here