আদালতে প্রথমার গোপন জবানবন্দি

0
22

নিজস্ব প্রতিনিধি, বোলপুর: লাভপুর অপহরণ কাণ্ডে এদিন অপহৃতার বাবা সহ তিন জনকে বোলপুর মহকুমা আদালতে তোলা হয়৷ দুপুর ২ টো ৪০ মিনিট থেকে রাত ৮ পর্যন্ত চলে মামলার শুনানি।

মাঝে প্রায় ৩ ঘন্টা অপহৃতা প্রথমা বটব্যালের গোপন জবানবন্দি নেন বিচারক। পরে অপহৃতার বাবা সুপ্রভাত বটব্যলকে ১১ দিন পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক অরবিন্দ মিশ্র।

গত ১৩ ফেব্রুয়ারি লাভপুরের বিজেপি নেতা সুপ্রভাত বটব্যলের মেয়েকে বাড়ি থেকে কানে বন্দুক ঠেকিয়ে অপহরণের অভিযোগ ওঠে৷ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় ব্যপক উত্তেজনা ছড়ায়। পুলিশ জনতা খণ্ড যুদ্ধ চলতে থাকে।

এই ঘটনায় পুলিশের ৩ টি দল ঘটনার তদন্ত শুরু করে৷ তদন্তে নেমে পুলিশ দার্জিলিং জেলার ডালখোলা স্টেশন চত্ত্বর থেকে রাজু সরকার ও দীপঙ্কর মণ্ডলকে গ্রেপ্তার করে৷

ধৃতদের জেরা করে পুলিশ অপহৃতা প্রথমা বটব্যালের বাবা সুপ্রভাত বটব্যলকে পরিকল্পনা মাফিক অপহরণের অভিযোগে গ্রেপ্তার করে। ধৃতদের এদিন বোলপুর মহকুমা আদালতে এসিজেএম অরবিন্দ মিশ্রর এজলাসে তোলা হয়।

যে কোন ধরনের গণ্ডগোল এড়াতে আদালত চত্ত্বর বিশাল পুলিশ বাহিনী ও কমব্যাট ফোর্স দিয়ে মুড়ে ফেলা হয়৷ আদালতে মামলার তদন্তকারী অফিসার মিখাইল মিয়া অপহৃতার বাবা সুপ্রভাত বটব্যলকে ১৪ দিন পুলিশ হেফাজতে আবেদন সহ অপহৃতার ১৬৪ ধারা অনুযায়ী গোপন জবানবন্দি নেওয়ার জন্য আর্জি জানান৷

এছাড়া, অপহৃতার বাবার বিরুদ্ধে ১২০ বি (অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র) ধারা যোগ করারও আর্জি জানানো হয়। আর্জি অনুযায়ী ১৬৪ ধারায় অনুযায়ী অপহৃতার জবানবন্দি নেন বিচারক (জেএম ২) মণিকুন্তলা রায়।
পরে রাত ৮ টা পর্যন্ত দীর্ঘ শুনানি চলে এসিজেএম অরবিন্দ মিশ্রের এজলাসে। পরে বিচারক সুপ্রভাত বটব্যলকে ১১ দিন পুলিশি হেফাজতে নির্দেশ দেন ও অপহৃতাকে হোমে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এদিন, ধৃতদের হয়ে সাওয়াল করেন বিজেপির জেলা সহ সভাপতি তথা আইনজীবী দিলীপ ঘোষ, কালোসোনা মণ্ডল।

মামলার সরকারি আইনজীবী ফিরোজ কুমার পাল বলেন, “পুলিশের আর্জি অনুযায়ী ধৃত সুপ্রভাত বটব্যলকে ১১ দিন পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক। ও তার বিরুদ্ধে ১২০ বি ধারা যোগ করারও নির্দেশ দেন।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here