সিঙ্গুরের ১০০০ একর জমিতে সমবায় গড়ে মনোক্রপ হোক # বাংলার ৪১,০০০ গ্রামে গড়ে উঠুক সমবায় # বেঙ্গল ওয়াচের জন্য কলম ধরলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক শ্যামলেন্দু মিত্র

0
23

# বেঙ্গল ওয়াচের জন্য কলম ধরলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক শ্যামলেন্দু মিত্র #

 

হাওড়া থেকে পুনরায় জিতে আসা অরূপ রায় ফের বাংলার সমবায় দফতরের মন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন।

আমাকে ভোটের আগে সমবায় দফতরের এক অফিসার বলেছিলেন, অরূপ রায় তার এলাকার  বন্ধ হয়ে যাওয়া এক সমবায় ব্যাঙ্ক চালু করে আমানতকারিদের প্রত্যেকের টাকা ফেরতের ব্যবস্থা করেছেন।

এইসব পরিবার ভোট দিলেই অরূপ রায়ের জেতা কেউ আটকাতে পারবে না।

সত্যিই অরূপ রায়  সাধারণ মানুষের কাছে সমবায়ের পরিষেবা পৌছে দেওয়ার ব্যবস্থা করেছেন।

অরূপ রায়ের কাছে আমার কয়েকটি প্রস্তাব যা বাংলার অর্থনীতির চাকা সামনের দিকে চালিত করবে।

১) সিঙ্গুরের ১০০০ একর জমির মালিককে নিয়ে সমবায় গড়ে তোলা হোক।

২) ওই জমিতে জমির মালিক সমবায়ের মাধ্যমে ১০০০ একর জমিতে মনোক্রপ চাষ করুক।

৩) ধান গম পাট  ফল সবজি মাছ হাস মুরগি চাষ হোক।

৪) সমবায় সমিতির সদস্য হিসেবে নিজেদের জমিতে প্রত্যেকে কাজের বিনিময়ে পারিশ্রমিক পাবেন।

৫) আবার প্রতি বছর সমবায় থেকে লভ্যাংশ পাবেন।

৬) শুধু চাষবাস নয়, ওই জমির ফসলকে কেন্দ্র করে সেখাবে গড়ে উঠতে পারবে কৃষি ভিত্তিক ছোট ও মাঝারি শিল্প। তা হবে সমবায়ের মাধ্যমে। তার মুনাফাও পাবেন সমবায়ের সদস্যারা।

৭) অনেকেই জানেন না, ভারতে এক নম্বর দুধ ভিত্তিক সংস্থা আমূল একটি সমবায় সমিতি।

৮) গুজরাটের কায়রা জেলায় কয়েকজন মহিলার গরু পালন ও দুধ বিক্রি থেকে আমূলের সূচনা।

৯) গুজরাটের কায়রা জেলায় এই সমবায় আন্দোলন করে তোলে বামেরা। সিপিআইয়ের মহিলা সদস্যরা।

১০) আজ আমূল ভারতের বৃহত্তম সফল সমবায়। যার পরিচালনার দায়িত্বে আইএএস অফিসারদের বসাতে হয়।

১১) আমূলের মডেল চালু হতে পারে সিঙ্গুর দিয়ে।

১২) এর পাশাপাশি বাংলার ৪১,০০০ গ্রামে গড়ে তোলা হোক সমবায় সমিতি।

১৩) একইভাবে পুর এলাকায় ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে পাড়ায় পাড়ায় গড়ে তোলা হোক সমবায় সমিতি।

১৪) সমবায় সমিতিগুলি বিভিন্ন ধরনের পরিষেবার পাশাপাশি উৎপাদন ও বিপণন করবে। হবে কর্মসংস্থান। চাঙ্গা হবে বাংলার অর্থনীতি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here