পর পর চুরির ঘটনায় আতঙ্কিত নবদ্বীপবাসী

0
31

নিজস্ব সংবাদদাতা, নদীয়া পরপর চুরির ঘটনায় এক প্রকার আতঙ্কিত শহরবাসী। গত মঙ্গল ও বুধবার নবদ্বীপ শহরের উত্তর থেকে পশ্চিম প্রান্তে দু দুটি দুঃসাহসিক চুরির ঘটনা ঘটে।

৩ ডিসেম্বর রাতে শহরের উত্তর প্রান্ত চৈতন্যের জন্মস্থানের পাশে এক সামরিক বাহিনীর জওয়ান সাগর বিশ্বাসের বাড়িতে।

সেই চুরির ঘটনায় চোরেরা প্রায় ২০ ভরি সোনার গহনা সমেত নগদ ৪২ হাজার টাকা নিয়ে চম্পট দেয়। ওই ঘটনায় থানায় অভিযোগ জানান জওয়ানের স্ত্রী বারুনী বিস্বাস। অভিযোগ পেয়ে তদন্ত শুরু করে নবদ্বীপ থানার পুলিশ। এরপরের দিন অর্থাৎ ৪ ডিসেম্বর শহরের পশ্চিম প্রান্তে আরও একটি দুঃসাহসিক চুরির ঘটনা সামনে আসে। শক্তিনগর জেলা হাসপাতালের সহকারী অধ্যক্ষ সুপ্রিয় সরকার পরিবার নিয়ে ভ্রমণে গিয়েছিলেন।

ওই চিকিৎসক ভ্রমণ সেরে বুধবার বাড়িতে ফিরে দেখেন সদর দরজা থেকে শুরু করে প্রতিটি ঘরের তালা ভাঙা অবস্থায় পড়ে রয়েছে। ঘরে ঢুকতেই দেখেন শুধু তালাই নয়, বাড়ির পেছনের গ্রিল পর্যন্ত কেটে দিয়েছে। চিকিৎসক জানান, চোরেরা আলমারীতে রাখা বেশ কয়েক ভরি গহনা ও নগদ কিছু টাকা উধাও হয়ে হয়েছে। পাশাপাশি বাড়িতে থাকা কাঁসার বাসন থেকে শুরু করে ঠাকুর ঘরে রাখা রুপার বাসনগুলিও নিয়ে যায়।

এই দৃশ্য দেখে হতবাক হয়ে যান ওই চিকিৎসক। অভিযোগ জানাতে সঙ্গে সঙ্গে ছুটে যান থানায়। সেদিন দুপুরেই লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন তিনি। উল্লেখ্য, দুটি ঘটনায় বাড়িতে ছিলেন না কেউ। ফাঁকা বাড়ির সুযোগ নিয়ে বিনা বাঁধায় চুরি করে পালায় চোরেরা। চুরির অভিযোগ পেয়ে তদন্ত শুরু করে থানার পুলিশ।

দু দুটি ভয়াবহ চুরির ঘটনার পর নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। চোরেদের খুঁজে বের করতে বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি অভিযান চালাতে শুরু করলেও, দুষ্কৃতীদের নাগাল পায়নি পুলিশ। পাশাপাশি উদ্ধার করা যায়নি চুরি যাওয়া কোনও সামগ্রী। এরই মধ্যে বৃহস্পতিবার রাতে আবারও দুঃসাহসিক চুরির ঘটনায় দিশাহারা প্রশাসন।

এবার চুরি কোনও বসত বাড়িতে নয়। চোরেরা বসত বাড়ি ছেড়ে এবার চুরি করল নবদ্বীপের অন্যতম প্রাচীন এক মন্দিরে। নবদ্বীপের প্রাণ কেন্দ্র পোড়ামা তলায় জগৎবন্ধু মহানাম মঠে। সেখানে চোরেরা মন্দিরের দরজা ভেঙে প্রনামি বাক্সে থাকা আনুমানিক প্রায় ১২ হাজার টাকা নগদ ও রাধা গোবিন্দের রুপোর মুকুট ও শতবর্ষ প্রাচীন রুপোর বাঁশি। মঠের মহাঅধ্যক্ষ জগৎতারণ ব্রম্মচারী জানান, নগদ টাকা সহ রাধা মাধবের গায়ে থাকা গহনা চোরেরা নিয়ে পালিয়ে যায়। মঠের সন্ন্যাসীদের আক্ষেপ, শতবর্ষ প্রাচীন রাধা মাধবের হাতে থাকা রুপোর বাঁশি টি চোরেরা নিয়ে যাওয়ায়। মহাঅধ্যক্ষ জানান, টাকা বা অন্যান্য গহনার জন্য আক্ষেপ নেই। শুধু রাধামাধবের বাঁশিটির জন্য আক্ষেপ হচ্ছে। কেননা বাঁশি টি ছিল শতবর্ষের উপর। কয়েকটি পাটে ভাঁজ হয়ে একেবারে ছোট হয়ে যেত।  দৈর্ঘ্যে প্রায় আড়াই ফুট মতো হবে। এদিকে শহরে একের পর এক চুরির ঘটনায় শহরবাসী আতঙ্কিত হলেও, নবদ্বীপ পৌরসভার পুরপিতা বিমান কৃষ্ণ সাহা বলেন, চিন্তিত হওয়ার কোনও কারণ নেই। প্রশাসন যথাযত ব্যাবস্থা নেবে। চোরেদের গ্রেপ্তারে বিষয়ে তিনি বলেন, প্রশাসন যথেষ্ট দক্ষ। খুব শীঘ্রই চোরেরা গ্রেপ্তার হবে। শহরে একের পর এক চুরির ঘটনায় নদিয়ার পুলিশ সুপার রূপেশ কুমার কে মোবাইলে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, মন্দিরে চুরির ঘটনায় তদন্ত শুরু হয়েছে। গ্রেপ্তারের বিষয়ে তিনি বলেন, চুরির ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করা যায়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here