গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব মিটিয়ে শান্তিপুরে অজয় ও কুমারেশকে নিয়ে একইমঞ্চে সভা বিধায়ক অরিন্দমের

0
152

নিজস্ব প্রতিনিধি, নদীয়া:- সাম্প্রতিককালে শান্তিপুরের রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে রাজ্যরাজনীতি সরগরম এবং প্রথমসারির দৈনিক পত্রপত্রিকায় প্রায় প্রতিদিনই শিরোনামে শান্তিপুর ।

সূত্রের খবর শান্তিপুরের এইধরণের রাজনৈতিক অস্থিরতা নিয়ে তিতিবিরক্ত শাসকদলের শীর্ষনেতৃত্ত্বও । দলের উপরথেকে বারংবার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সবাইকে নিয়ে একসাথে কাজ করার কিন্তু বিধায়ক অরিন্দম ভট্ট্যাচার্য্য এবং পৌরপিতা তথা প্রাক্তন বিধায়ক অজয় দে-র অনুগামীদের মধ্যে চাপা দ্বন্দ্ব কিছুদিন যাবৎ অস্থির ক’রে তুলেছিল শান্তিপুরকে ।

তারমধ্যে মরার ওপর খাঁড়ার ঘা – এর মতো প্রবীন পরিচিত নেতা কুমারেশ চক্রবর্তী বিধায়ক অরিন্দম ভট্ট্যাচার্য্য সম্পর্কে সোশ্যাল মিডিয়ায় যে সকল বিষ্ফোরক মন্তব্য করেছেন তাতেও শাসকদলের শীর্ষনেতৃত্ত্ব যথেষ্ট বিরক্ত বলে জানা যায় ।

পরবর্তীতে কুমারেশ চক্রবর্তী অবশ্য তাঁর এই মন্তব্যের জন্য সোশ্যাল মিডিয়ায় কার্যত ক্ষমা চেয়ে নেন । সবকিছু নিয়ে শান্তিপুরে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের আবহ তৈরী হয় কিন্তু বিগত ১লা জানুয়ারী ২০১৯-এর সভা এক নতুন রাজনৈতিক পরিবেশের সূচনা করে শান্তিপুরে ।

১৯ শে জানুয়ারী মমতা ব্যানার্জ্জীর ব্রিগেড সভার প্রস্তুতি সভায় শান্তিপুর পাবলিক লাইব্রেরীর মাঠে তৃণমূলের নদীয়াজেলা নেতৃত্ত্বকে সামনে রেখে একইমঞ্চে অজয় দে এবং কুমারেশকে সঙ্গে নিয়ে অনেকক্ষণ বক্তৃতা রাখলেন বিধায়ক অরিন্দম ভট্ট্যাচার্য্য । সবাইমিলে ব্রিগেডের সভাকে ভরিয়ে তোলার আহ্বানও রাখলেন সকল তৃণমূল কর্মীর উদ্দ্যেশ্যে ।

ঐদিনের সভা পৌরপতি অজয় দে-র ডাকা সভা হলেও সূত্রের খবর দলের শীর্ষনেতৃত্ত্বের নির্দেশ ছিল সকলকে নিয়ে সভা করার । সভায় উপস্থিত ছিলেন নদীয়া জেলার তৃণমূলের সভাপতি তথা বিধায়ক গৌরীশঙ্কর দত্ত, সদ্য মন্ত্রী হওয়া চাকদহের বিধায়ক শ্রীমতি রত্না ঘোষ (কর), রাণাঘাট কেন্দ্রের সাংসদ ডঃ তাপস মন্ডল, নদীয়া জেলার সভাধিপতি শ্রীমতি রিক্তা কুন্ডু , রাণাঘাটের বিধায়ক তথা প্রবীন পোড়খাওয়া রাজনীতিবিদ্ শঙ্কর সিং তৎসহ তপন সরকার ও আরও অনেকেই ।

প্রত্যেকেই তাঁদের নিজ নিজ বক্তৃতায় মূলতঃ সবাইমিলে একসাথে চলার বার্তা দিয়েছেন । সেদিনের সভাতে অজয় দে, অরিন্দম এবং কুমারেশ এই তিন জনকেই বেশ খুশি খুশিই লেগেছে । অরিন্দম যে নিজেদের মধ্যে আপাতঃ দ্বন্দ্ব মিটিয়ে আগামীদিনে একসাথে চলতে বদ্ধপরিকর তা তিনি সেদিনের সভায় উপচেপড়া সমর্থনদের বোঝাতে পেরেছেন ।

এখন দেখা যাক্ সময় কি বলে, সেদিকে আমাদের দৃষ্টি থাকবে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here