বেঙ্গল ওয়াচ ডেস্ক ::ভারতের তৃতীয় সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মান পদ্মভূষণ তুলে দেওয়া হল গুগল সিইও সুন্দর পিচাইয়ের হাতে।

 

 

শনিবার ভারতীয় দূতের তরফে এই সম্মান সুন্দরের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। এই বছরে মোট ১৭ জনকে ভারত সরকারের তরফে এই সম্মান প্রদান করার কথা ঘোষণা করা হয়েছিল। এদিন তা গ্রহণ করে পিচাই জানিয়েছেন, ভারত আমার অংশ। এবং আমি যেখানেই যাই তাকে হৃদয়ে সঙ্গে নিয়ে যাই। বাণিজ্য এবং শিল্প ক্যাটেগরিতে ২০২২ সালে পদ্মভূষণ সম্মান পেয়েছেন সুন্দর পিচাই। সান ফ্রান্সিসকোতে পরিবারের সদস্যদের সামনেই পিচাইয়ের হাতে এই সম্মাননা তুলে দেওয়া হয়েছে।

‘ভারত সরকারের কাছে আমি গভীরভাবে কৃতজ্ঞ। ভারতের জনগণকেও আমি আমার কৃতজ্ঞতা জানাই। আমার দেশের তরফে এমন একটি সম্মান আমাকে অভিভূত করেছে।’ সান ফ্রান্সিসকোতে ভারতীয় দূত তরণজিৎ সিংয়ের হাত থেকে তিনি এই সম্মান গ্রহণ করেছে জানিয়েছেন পিচাই।

অতীতের কথা মনে করতে গিয়ে সুন্দর পিচাই বলেন, আমি ভাগ্যবান যে এমন এক পরিবারের জন্মগ্রহণ করেছেন যেখানে নতুন কিছু শেখা এবং জ্ঞানকে উৎসাহ দেওয়া হতো। আমার বাবা-মা আমাকে বড় করতে গিয়ে অনেক কিছু ত্যাগ করেছেন।

ভারতীয় দূতাবাসের কনসোল জেনারেল নগেন্দ্র প্রসাদ সুন্দর পিচাইকে নিয়ে বলতে গিয়ে জানিয়েছেন, সুন্দর পিচাই প্রযুক্তিকে মানব সভ্যতার উন্নতিতে ব্যবহার করার চেষ্টা করেছেন। এবং কীভাবে তা সমাজের বিভিন্ন অংশে ছড়িয়ে দিয়ে জীবনকে সহজ করা যায়, সেই কাজ করে চলেছেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর স্বপ্নের তিন এস- স্পিড, সিম্প্লিসিটি এবং সার্ভিসকে নতুন পথ দেখাচ্ছেন সুন্দর পিচাই। ভারতে ডিজিটাল বিপ্লবের ক্ষেত্রে গুগল আরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে চলেছে বলেই নগেন্দ্র প্রসাদ আশা প্রকাশ করেছেন।

ভারতের উদ্ভাবন হওয়া বিভিন্ন প্রযুক্তিগত সুবিধা সারা বিশ্বের মানুষকে সুবিধা দিচ্ছে। গুগল এবং ভারতের মধ্যে এই পার্টনারশিপ আরও অনেক বেশি মানুষকে উপকৃত করবে বলেই সুন্দর পিচাই মনে করছেন। ডিজিটাল ট্রান্সফর্মেশনের যুগে সাধারণ মানুষের হাতে আরও বেশি করে ইন্টারনেট পৌঁছে যাচ্ছে। এমনকী প্রত্যন্ত গ্রামীণ এলাকাতেও ইন্টারনেটের সুবিধা পৌঁছে গিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ডিজিটাল ইন্ডিয়ার দূরদর্শী স্বপ্ন এই ঘটনাকে ত্বরান্বিত করেছে। গুগল ভারত সরকারের সঙ্গে হাত মিলিয়ে যেভাবে কাজ করছে। তাতে আমি গর্বিত বলে জানিয়েছেন সুন্দর পিচাই।

বর্তমান যুগে যে প্রযুক্তি আমাদের হাতে আসছে তা আমাদের জীবনকে আরও সহজ এবং সুন্দর করে তুলছে। মানুষের জীবন সারা বিশ্ব জুড়ে সহজ করে তোলার যে সুযোগ আমি পেয়েছি তা অসাধারণ। আগামী দিনে আরও অনেক সুযোগ অপেক্ষা করে রয়েছে। আসন্ন জি২০-র প্রেসিডেন্সি ভারতের হাতে এসেছে। সুন্দর পিচাই মনে করছেন, এটা এক অসাধারণ সুযোগ বৈশ্বিক অর্থনীতিকে এগিয়ে যাওয়ার। এবং সকলকে এক সুতোয় সংযুক্ত করার। পাশাপাশি এবছর গুগল আরও ২৪টি নতুন ভাষা তাদের ট্রান্সলেশন সার্ভিসে যুক্ত করেছে বলেও সুন্দর পিচাই জানিয়েছেন। যার মধ্যে আটটি ভাষা ভারতের। যা আগামী দিনে ভারতের জনগণকে প্রযুক্তিগতভাবে আরও শক্তিশালী করবে বলে সুন্দর পিচাই মনে করছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here