মদনমোহন সামন্ত, কলকাতা : চার দেয়ালের মধ্যে নানান দৃশ্যে নয়,বন্ধ দরজার পিছনেও নয়। মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে জুনিয়র ডাক্তারদের বৈঠক হতে হবে প্রকাশ্যে এবং তা-ও সারা দেশের মিডিয়ার সামনে। এমনই শর্তসাপেক্ষে “মুখ্যমন্ত্রীকে এনআরএস-এ গিয়ে কথা বলতে হবে” দাবি থেকে সরে এলেন আন্দোলনরত জুনিয়র ডাক্তাররা।

রবিবার সকাল দশটায় শুরু হওয়া জেনারেল বডি বা জি বি বৈঠকে অচলাবস্থা কাটাতে এমনই সিদ্ধান্ত নিলেন জুনিয়র ডাক্তাররা। তাদের ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিকর্তা ডাঃ প্রদীপ মিত্র সহ অন্যান্য সিনিয়র ডাক্তাররাও। শুধু তাই নয়, বৈঠকের স্থান কোথায় হবে তা নির্ধারণের দায়িত্বও মুখ্যমন্ত্রীর উপরে চাপিয়ে দিয়েছেন তারা। সমাধান খোঁজার আগামী সেই বৈঠকে যাতে সমস্ত মেডিকেল কলেজের উপযুক্ত সংখ্যক প্রতিনিধি (প্রায় ষাট জন) থাকতে পারেন সে ব্যবস্থার দিকেও নজর দিতে অনুরোধ করেছেন তারা। সমস্যার আশু সমাধানের জন্য মুখ্যমন্ত্রী সাড়া দেবেন বলে তাদের আশা।

তবে তারা এটাও জানাতে ভোলেননি যে, শনিবার নবান্নে সাংবাদিক সম্মেলন চলাকালীন জুনিয়র ডাক্তাররা তাঁর সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছেন বলে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে তথ্য সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, তা বিভ্রান্তিকর এবং অসঙ্গতিমূলক। ম্যারাথন বৈঠক শেষে সাংবাদিক সম্মেলনে তাদের মূল বক্তব্য হল —
১) বৈঠকের স্থান এমনভাবে নির্বাচিত হোক যেখানে সব মেডিকেল কলেজের প্রতিনিধিরা থাকতে পারবেন এবং সারাদেশের সংবাদ মাধ্যমও সেখানে উপস্থিত থাকবে।
২) রোগী এবং জনস্বার্থে বৈঠকের স্থান নির্ধারণ করার বিষয়টি মুখ্যমন্ত্রীর উপরেই ছেড়ে দিচ্ছেন তারা।
৩) বন্ধ ঘরে বৈঠকের স্বচ্ছতা না থাকার প্রশ্নে মুখ্যমন্ত্রী নবান্নে ডাকা সত্ত্বেও তারা সেখানে যাবেন না।
৪) তারা অবিলম্বে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসতে চান কিন্তু তা বন্ধ দরজার ভিতরে নয়।

৫) সাধারণ মানুষের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে তারা অবিলম্বে কাজে যোগ দিতে চান।
৬) সংবাদমাধ্যমে শনিবার মুখ্যমন্ত্রীর বিবৃতির পর সমস্যার আশু সমাধান হবে ধরে নিয়েই রবিবার তারা জিবি বৈঠক ডেকেছিলেন যাতে অচলাবস্থার অবসান হয়।
৭) আন্দোলন নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী প্রশ্ন তুলেছেন, শনিবারে সাংবাদিক বৈঠকে তাঁর বিবৃতি অসঙ্গতিপূর্ণ এবং বিভ্রান্তিমূলক, তারা মর্মাহত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here