সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া একটি ছবি

0
40

মালদা- ২০১৭ সালের ৭ ডিসেম্বর। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া একটি ছবি হতাশার অন্ধকারে ফেলে দিয়েছিল কালিয়াচকের একটি পরিবারের।

ওই পরিবারের এক সদস্য আফরাজুল শেখ রাজস্থানে গিয়েছিলেন ঠিকাশ্রমিকের কাজ করতে। সেখানেই তাঁকে খুন করে জীবন্ত অবস্থায় পুড়িয়ে খুন করেছিল শম্ভুনাথ রেগড় নামে এক ব্যাক্তি।

বিজেপি খমতায় থাকায় বিচার পাইনি কালিয়াচকের আফরাজুলের পরিবার এবার রাজস্হানে খমতাই কংগ্রেস। পরিবারে উপার্জনের একজন সদস্যে ছিল তাকে নৃশংস ভাবে খুনের আসামি শাস্তি পাবে এই আসাই বুক বেধেছে আফরাজুলের পরিবার।

খুনের সেই দৃশ্য ভিডিও করে তা ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। বীভৎস সেই দৃশ্য দেখে চমকে উঠেছিলেন সারা দেশের মানুষ। বয়ে গিয়েছিল প্রতিবাদের ঝড়। নিহত আফরাজুলের পরিবারের দিকে সাহাজ্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিল রাজ্য সরকার সহ বিভিন্ন সংগঠন। নেতামন্ত্রীর ভিড়ে কয়েকদিন গমগম করেছিল কালিয়াচকের অখ্যাত গ্রাম বাখরাবাদ।

আফরাজুলের এক মেয়েকে রাজ্য সরকার চাকরি দিয়েছে। দেওয়া হয়েছে কয়েক লক্ষ টাকার আর্থিক সাহায্য। কিন্তু এখনো শাস্তি পায়নি খুনী শম্ভুনাথ। ঘটনা সামনে আসার পরেই সেই সময় ক্ষমতায় থাকা বিজেপি সরকারের পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করেছিল। কিন্তু এক বছর পার  হয়ে গেলেও শেষ  হয়নি বিচারপর্ব।

দীর্ঘ সময় পার হলেও দাবিমতো খুনীর ফাঁসি না হওয়ায় হতাশা জমতে শুরু করেছিল আফরাজুলের পরিবারে। তবে রাজস্থানে কংগ্রেস ক্ষমতায় আসার পরেই নতুন করে আশার আলো দেখতে শুরু করেছেন তাঁরা। দ্রুত বিচার প্রক্রিয়া শেষ করে  খুনীর শাস্তি দেওয়ার ব্যাপারে সরকার এবার উদ্যোগ নেবে বলে আশাবাদী নিহত আফ রাজুলের স্ত্রী গুলবাহার বিবি সহ তাঁর তিন কন্যা এবং পরিবারের সকলে।

গুলবাহার বিবি জানান, বিজেপি সরকার রাজস্থানের ক্ষমতায় থাকার সময় তাঁর স্বামীর খুনীর সাজা দেওয়ার বিষয়ে কোনো উদ্যোগ নেয়নি। ফলে বছর ঘুরে গেলেও সে বেঁচে রয়েছে। আমরা আশা করব, রাজস্থানের কংগ্রেস সরকার দ্রুত বিচার শেষ করে শম্ভুনাথকে যাতে ফাঁসির সাজা দেয়।

নিহত আফরাজুলের এক মেয়ে রোজিনা খাতুন জানান, তাঁর বাবার খুনের পর রাজ্য সরকার তাঁকে একটি চাকরি দিয়েছে। কিন্তু বাবার খুনী এখনো জীবিত রয়েছে। তাকে শাস্তি দিতে রাজস্থানের সরকার

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here