জমি মাফিয়াদের তাণ্ডবে আহত মহিলা ,গ্রেফতার ৪

0
124

তারাশঙ্কর গুপ্ত, বাঁকুড়ার : এলাকার পুকুর পাড়ের জমি দখলকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ালো বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুরে। ‘জমি দালাল’দের লাঠির ঘায়ে জখম এক মহিলাকে বিষ্ণুপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।এমনটাই অভিযোগ যমুনাবাঁধ এলাকার বাসিন্দাদের ।

স্থানীয় সূত্রের খবর ৬০ নম্বর জাতীয় সড়কের পাশে একটি পুকুর পাড়ের জমি মাফিয়ারা দখল করে নিচ্ছিল বলে অভিযোগ।রুখে দাঁড়ান যমুনাবাঁধ কলোনীর বাসিন্দারা । ঐ পুকুরের মালিকানা যমুনাবাঁধ ষোলো আনা কমিটির ।

সেকারণেই পাড়ার সকলে মিলিত প্রতিবাদ করেন।আর তাতেই চক্ষু শূল হয়ে যান জমি মাফিয়াদের কাছে। রবিবার এবিষয়ে যমুনাবাঁধ ষোলো আনা কমিটি একটি জরুরী মিটিং ডাকেন বলে জানান এলাকার মানুষ ।কিন্তু সেই মিটিং এ ‘জমি মাফিয়া’ বলে পরিচিত ব্যক্তিদেরও ডাকা হয়েছিল। কিন্তু তারা ঐ মিটিং না এসে রাত এগারো নাগাদ ঐ পাড়ার বাসিন্দা, ষোল আনা কমিটির অন্যতম সদস্য সায়ন দাসের উপর হামলা চালায়। ছেলেকে বাঁচাতে গিয়ে দুষ্কৃতিদের তাণ্ডবে গুরুতর আহত হন সায়নের মা সাধনা দাস(৫০)।

সায়ন দাসেদের চিৎকারে গ্রাম বাসীরা ঘটনাস্থলে এসে দুষ্কৃতিদের ধরে ফেলেন। উত্তেজিত জনতা তাদের চারটি বাইক ভাঙ্গচুর করেন। ধৃতদের রাতেই পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়।স্থানীয় বাসিন্দা সোমা দাস অভিযোগ করেন এলাকার জমি মাফিয়া বলাই দাস এইসব কান্ড ঘটাচ্ছে। সে আমার ছেলে ঔ সায়নকে প্রানে মারার হুমকি দিয়েছে। যদিও মূল অভিযুক্ত ‘জমি মাফিয়া’ হিসেবে পরিচিত বলাই দাস পলাতক।

সোমবার অভিযুক্তদের নামে যমুনাবাঁধ কলোনির সায়ন দাস বিষ্ণুপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। বিষ্ণুপুরের এস ডি পি ও সুকোমল কান্তি দাস জানান চার জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি চার জনের খোঁজে তল্লাশি চলছে। তদন্ত শুরু হয়েছে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

মূল অভিযুক্ত বলাই দাসের তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ।ধৃতদের সোমবার বিষ্ণুপুর মহকুমা আদালতেতোলা হলে বিচারক তাদের সাত দিনের জেল হেফাজত দিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here