মোদী-শাহের ঘুম উড়িয়ে উত্তরপ্রদেশে জোট বাঁধলেন মায়া-অখিলেশ

0
21

নিজস্ব প্রতিনিধি :জল্পনা ছিলই। দুপক্ষের কথাও চলছিল। এবার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা হল। লোকসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে উত্তরপ্রদেশে জোট গড়লেন বিএসপি প্রধান মায়াবতী ও সমাজবাদী পার্টির অন্যতম সুপ্রিমো অখিলেশ যাদব।

লক্ষৌতে সাংবাদিক সম্মেলন করে ৩৮ টি করে আসনে লড়ার কথা ঘোষণা করেন তাঁরা।
আজ শনিবার সাংবাদিক বৈঠকের শুরুতেই মায়াবতী চাঁচাছোলা ভাষায় বলেন, ‘গুরু নরেন্দ্র মোদী এবং চেলা অমিত শাহের ঘুম ছোটাতে ঐতিহাসিক ঘোষণা করতে চলেছি আমরা’।

পাশাপাশি জানিয়ে দেন, ‘দুর্নীতিগ্রস্ত’ কংগ্রেসের সঙ্গে জোট করে লাভ নেই তাদের। সমান আসনে লড়বে সপা-বসপা। মায়াবতী বলেন, দু’দলই ৩৮টি করে আসনে লড়বে। কংগ্রেসের সঙ্গে জোট না করেই অমেঠি ও রায়বেরিলি কেন্দ্র রাহুলদের জন্য ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে।

ওই দুটি কেন্দ্র ছাড়া কংগ্রেসের যে গতি নেই, সেটাও আবভাবে বুঝিয়ে দেন মায়াবতী। বাকি দুটি অন্যান্যদের জন্য রাখা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, পঁচিশ বছর আগে ১৯৯৩ সালে একইরকম জোট গঠন করা হয়েছিল। সেই পথে হেঁটেই ফের যুযুধান দুই পক্ষ হাত মেলালেন আজ। শনিবারের সাংবাদিক বৈঠকে মায়াবতী বলেন, ‘যখনই রাজ্যে বিপর্যয় নেমে এসেছে, হাতে হাত মিলিয়ে লড়াই করেছে সপ-বসপা’।

নব্বইয়ের শুরুতে বিজেপির সাম্প্রদায়িক রাজনীতির প্রসঙ্গ তুলে মায়াবতী বলেন, বিজেপিকে রুখতে সে সময় সপা-বসপা জোট করেছে। ১৯৯৫-তে লখনউ গ্যাস কাণ্ডের জেরেও হাত মিলিয়েছে দুই দল। পাশাপাশি, ১৯৯৩ সালের কাশীরাম-মুলায়ম জোটেরও উল্লেখ করেন মায়াবতী। অর্থাৎ মায়াবতী বুঝিয়ে দিলেন, যখনই দেশ এবং রাজ্যে অরাজকতার পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে, তখনই জোট করেছে সপা-বসপা। এখন তো উত্তরপ্রদেশে অঘোষিত জরুরী অবস্থা চলছে বলে দাবি করেন বহেনজি।

নতুন জোটের প্রসঙ্গে মায়াবতী বলেন, ‘এই জোট উত্তরপ্রদেশে কোনও ভোটই বিজেপির দিকে যেতে দেবে না।

রাজ্যের মোট ৮০টি লোকসভা আসনে কে কোথায় লড়বেন, তা চূড়ান্ত হয়ে গিয়েছে। আমেঠী আর রায়বরেলী ছাড়া বাকি ৩৮টি করে আসনেই প্রার্থী দেবে এই জোট। এমন অবস্থা যে, ইভিএমে গোলমাল না হলে একটি আসনেও জিতবে না বিজেপি’।
এরপরে অখিলেশ বলেন, ‘এই জোট ভাঙার জন্য পর্দার পিছন থেকে ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে বিজেপি। আপনারা সতর্ক থাকুন। বিজেপি জমানায় মহিলা ও গরীবদের উপর অত্যাচার চলছে’। তাঁর কথায়, ‘গোটা দেশে রয়েছে অরাজকতার বাতাবরণ। হাসপাতালে রোগীদের চিকিৎসার আগে তাঁদের জাত জানতে চাওয়া হচ্ছে। গরীব চাষি আত্মহত্যা করছে। নিরীহদের এনকাউন্টার করা হচ্ছে। ঘৃণা, বিদ্বেষ ছড়ানো হচ্ছে দেশজুড়ে। তার অবসান ঘটাতেই এই জোট। ময়াবাতীর অসম্মান মানেই আমার অসম্মান’।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here