নিজস্বসংবাদদাতা, পূর্ব বর্ধমানঃভুয়ো পরিচয় দিয়ে পরকীয়া৷ সম্পর্কের নাম টাকা এবং গয়না হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ৷

যুবকের মতলব বুঝতে পেরে প্রতিশোধ নিতে ওই যুবককে বেঁধে ঝাঁটাপেটা করলেন তিনি৷ ওনার সঙ্গে সঙ্গ দিলেন স্থানীয়রা৷ বেধড়ক মারধরের পর ওই যুবককে পুলিশের হাতে তুলে দেয় স্থানীয়রা ৷

ঘটনাটি ঘটে শুক্রবার বিকেলে পূর্ব বর্ধমানের ভাতার থানার কামারপাড়া গ্রামে । ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয় l

সূত্রের খবর সৌমিত্র নামে ওই যুবকের প্রায় ৬ বছর আগে বিয়ে হয়েছিল। বাড়িতে রয়েছেন স্ত্রী, ৪ বছরের মেয়ে এবং মা।ভাতারের কাশীপুর গ্রামের এক বধূর সঙ্গে ফোনে ভাব জমায় সে। ওই গৃহবধূ একটি বিউটি পার্লারে কাজে কর্মরত। স্বামী পেশায় পুরোহিত। মহিলার দাবি, টাকা হাতানোর লক্ষ্যে গৃহবধূর সঙ্গে সম্পর্ক রাখছিল সে৷

ওই যুবক নিজেকে শিক্ষক ও অবিবাহিত পরিচয় দিয়ে প্রায় একবছর ধরে গৃহবধূর সঙ্গে সম্পর্ক ছিল। শেষে শর্ত হয়েছিল ১৫ ভরি সোনার গয়না এবং ১০ হাজার টাকা দিলে বিয়ে করবে বলে জানায় সে। দিনসাতেক আগে থেকেই বধূ বুঝতে পারে ভাবগতি ভালো নয় এবং তার মতলব ধরে ফেলেন। তারপর তিনি ছক কষতে থাকেন কীভাবে প্রতারককে উচিত শিক্ষা দেওয়া যায়। পরিবার ও প্রতিবেশীদের জানিয়ে রীতিমতো জাল ফেলে ধরে ফেলে প্রতারককে। বিয়ের মালা আর তার কপালে জুটলো না তার পরিবর্তে পড়ানো হল জুতোর মালা। ল্যাম্প পোস্টে বেঁধে ঝাঁটাপেটাও করা হয় তাকে৷ সঙ্গে বাদ যাননি স্থানীয়রাও। স্থানীয়রা সৌমিত্র কুণ্ডু নামে ওই যুবককে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। তার বাড়ি ভাতারের কালীপাহারি গ্রামে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here