শ্যামলেন্দু মিত্র #  সাংবাদিকরাও কাটমানি খায়, মুখ্যমন্ত্রীর কার্যত এই মন্তব্য নিয়ে সাংবাদিক মহল বিচলিত। কারণ,কোন কোন সাংবাদিক টাকা খায় তা মুখ্যমন্ত্রী বলেননি। অথচ মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন,তিনি তা জানেন এবং বলে দিতে পারেন।

এখানেই সাংবাদিক হিসেবে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে  আমার প্রশ্ন,এভাবে আপনি আপনার বক্তব্য ভাসিয়ে দিতে পারেন না। কারণ,আপনি জানেন যে সাংবাদিকদের ৯৯.৯৯ শতাংশ সৎ ও নিষ্ঠাবান।

আর আপনি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, আপনার কাছে সঠিক তথ্য থাকারই কথা। সেই সূত্রেই আপনি দাবি করেছেন যে সাংবাদিকদের একাংশ টাকা খান।

মুখ্যমন্ত্রী ঠিক কী বলেছেন?

মুখ্যমন্ত্রী বুধবার বিধানসভায় কাটমানি প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে বলেন, সাংবাদিকদের একাংশ টাকার বিনিময়ে ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে অন্যদের এপয়েন্টমেন্ট করিয়ে দেন। মুখ্যমন্ত্রী বলেন,আমি ওই সাংবাদিকের নাম জানি। কিন্তু বলছি না। তিনি আরও বলেন, ওই ধরনের সাংবাদিকরা অনেকেই একাধিক বাড়ি-গাড়ি করেছেন।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন,সব পেশাতেই কিছু খারাপ লোক আছে। যেসব সাংবাদিকরা টাকা নিয়ে এপয়েন্টমেন্ট করিয়ে দেন,তাদের  জানি। তারা আবার লেখেন। সবাইকে জ্ঞান দেন। আমার মুখ খুলিয়ে লাভ নেই।

# আমি মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের সাথে পুরোপুরি একমত।।।।

আমার ৪০ বছরের সাংবাদিকতা জীবনে অনেক কিছু দেখেছি। অনেক কিছু শুনেছি। মুখ্যমন্ত্রীর কাছে সব খবর আসে। শিলিগুড়ি থেকে কলকাতা, তার গাড়িতে ওঠারাও কী করে বেড়াচ্ছেন,তাও তার নখদর্পনে। পালটি খাওয়া সাংবাদিকরাই এখন কলার তুলে বেড়াচ্ছে। নীতির বালাই নেই। রাতারাতি রঙ বদালায় এইসব গিরগিটিরা।

আমাদের কাছেও অনেক খবর আসে। তার থেকে অনেক বেশি খবর থাকে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে। তাই তিনি এত জোর দিয়ে বলতে পারেন।

আমার মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আর্জি,তিনি ব্ল্যাক শিপ অর্থাৎ কুলাঙ্গার সাংবাদিকদের নাম ধাম প্রকাশ করে দিন। কারণ সাংবাদিককূল এটাই চাইছে। না হলে একজন আর একজনকে কুলাঙ্গার ভাবছে।

বেশির ভাগ সাংবাদিকের নুন আনতে পান্তা ফুরোয়। কজন সাংবাদিক ভালো বেতন পান?

# আপনি কি জানেন, প্রবীণ সাংবাদিক বাদল স্যান্যালের কী দুরবস্থা?  চরম আর্থিক অনটনে রয়েছেন উত্তরপাড়ায়। এতই খারাপ অবস্থা যে তিনি স্বেচ্ছামৃত্যু চান। # সাংবাদিক অমূল্য মন্ডল প্রয়াত। তিনি জীবনের শেষ প্রান্তে কার্যত অন্যের দয়া দাক্ষিনের উপর ভরসা করে সাংসার চালাতেন।

# বেশিরভাগ সাংবাদিকের যখন এই অবস্থা তখন হাতে গোনা কয়েকজন কুলাঙ্গার সাংবাদিকের জন্য এই মহান পেশার বদনাম হচ্ছে।

তাই আমার মনে হয় এইসব কুলাঙ্গার সাংবাদিকদের মুখোশ খুলে দেওয়া উচিত। আপনিই পারেন এই কাজটা করতে।

আশা করি আমার এই আবেদন আপনি উপলব্ধি করতে পারবেন। আমাদের ইন্ডিপেন্ডেন্ট জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি হিসেবে আমি আপনার কাছে এই নিবেদন রাখলাম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here