শ্যামলেন্দু মিত্র # মদনের গুস্যা হয়েছে। অর্থাৎ মদন মিত্রের রাগ হয়েছে।  দিদিমনির প্রাক্তন মন্ত্রী মদনবাবুর অভিমান হয়েছে।

প্রাক্তনমন্ত্রী মদন মিত্র তার অভিমান,ক্ষোভ,রাগ সব উগরে দিয়েছেন ফেসবুকে।
কেননা,তার মতো অনেককেই নারদের টাকা নিতে দেখা গিয়েছে,কিন্তু  সিবিআই বেছে বেছে তাকেই গ্রেফতার করলো। ২২ মাস জেল খাটতে হয়েছে। ভোটের সময়ও প্যারোলে মুক্তি দেওয়া হয়নি!

দিদিমনি তার প্রতি বরাবরই সহায়। তাই তো তাকে জেল থেকে পানিহাটি বিধানসভায় প্রার্থী করেন।

কিন্তু মদনের রাগ বা অভিমান অন্য কারণে।

মদনের বক্তব্য, আমি কামারহাটিতে অত্যন্ত জনপ্রিয়। তাই একবার ভোটের প্রচারে যেতে পারলেই কেল্লা ফতে হতো। জিতে জেতেন।

কিন্তু কী হয়েছিল জানেন?

মদনের কথায়, আমি ৪৩ বার প্যারোলের জন্য আবেদন করেছিলাম। প্যারোলে  ছাড়া পেয়ে অন্তত একটি বারের জন্য ভোটের প্রচারে যেতে চেয়েছিলাম। আমাকে প্রথমে বলা হয়েছিল,দিল্লির কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন থেকে অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না। আমি মুখ্য নির্বাচন কমিশনারের কাছ থেকে জানতে পারি, প্যারোলের মুক্তির বিষয়টি রাজ্য সরকারের অধীন। ওই সময় রাজ্যের কারামন্ত্রী ছিলেন হায়দার আজিজ সফি। এখন প্রয়াত। মদনের সন্দেহ,তাহলে কি আমার প্যারোলের আবেদন চেপে দেওয়া হয়েছিল।

মদনের আক্ষেপ,আমাকে আমার কেন্দ্রে ভোট দিতেও দেওয়া হয়নি।

অথচ আমি ওই কেন্দ্রের ভোটার। আমাকে ভোটে কেন্দ্রে একবার যদি ভোটাররা দেখতে পেতেন তাহলে আমি  নিশ্চিত ১৮০০ ভোট বেশি পেতাম। তাহলে আমি ১৮০০ ভোটে হারতাম না।

আমাকে সিবিআই ২২ মাস জেলে আটকে রেখেও কিছু প্রমাণ করতে পারলো না। আমি নাকি প্রভাবশালী, তাই আমি বাইরে থাকলে মামলায় প্রভাব  বিস্তার করতে পারি।

মদন এখানেই থেমে থাকেননি। তিনি তার দলের মন্ত্রী-সাংসদ ফিরহাদ হাকিম,সৌগত রায়, সুদীপ ব্যানার্জি, কাকলি ঘোষ দস্তিদার,অপরূপা পোদ্দার সহ কয়েক জনের নাম করে বলেন,এদের ভাগ্য ভাল যে সিবিআই তাদের কিছু বলেনি।

মদনের বক্তব্য,আমি হেরে গেলে দলের অনেকে বলেছিলেন যে আমি জেলে ছিলাম বলে হেরে গিয়েছি।  দলের অনেকে বলেছিলেন, আমাদের বিরুদ্ধেও তো নারদের অভিযোগ ছিল,কিন্তু আমরা তো হারিনি। কিন্তু তাদের বলি,আমার মতো তো তোমাদের সিবিআই ধরেনি।

মদনের সাফ কথা, তাকে ভোটের সময় প্যারোলে মুক্তি দিলে তিনি অবশ্যই জিততেন।

মদনের বক্তব্য, দেশদ্রোহী কেসে গ্রেফতার হয়ে জেলে থাকারাও প্যারোলে মুক্তি পেয়েছে। এই বাংলাতেই এই সরকারের আমলেই

ছত্রধর মাহাতো প্যারোলে ছাড়া পায়, কিন্তু আমার ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here