শ্যামলেন্দু মিত্র #  কলকাতার মেয়র ও পুরমন্ত্রী ফিরহাদ(ববি) হাকিমের হবু-ডাক্তার কন্যা শাবা হাকিম তার বাবার তৃণমূল সরকারকে হাসপাতালে ঢুকে বহিরাগতদের ডাক্তার পেটানো ও তাই নিয়ে  সরকারি হাসপাতালে অচলাবস্থার জন্য বে-আব্রু করে দিয়েছেন।

সাবা নিজেকে তৃণমূলের সমর্থক দাবি করেও সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করেছেন।

একবার দেখে নেওয়া যাক সাবা কী বলেছেন?

কলকাতার মেয়র ও পুরমন্ত্রী ববি হাকিমের কন্যা শাবা হাকিম(কেপিসি মেডিকেল কলেজের ছাত্রী) তার ফেসবুকে  ইংরেজিতে যা পোস্ট করেছেন  তার বাংলা করলে এইরকম।

# সাবার বক্তব্য  # সরকারি  এবং বেশিরভাগ বেসরকারি হাসপাতালগুলির ডাক্তাররা ওপিডি  বয়কট করেছেন, কিন্তু এখনও জরুরি বিভাগে পরিষেবায় নিয়োজিত আছে । অন্যান্য পেশার মতো আমরা হঠাৎ করে কাজ না করার সিদ্ধান্ত নিই না, কারণ শেষমেশ আমাদেরও মানবতা আছে।

বাস বা ট্যাক্সি ধর্মঘট থাকলে কোনও ট্যাক্সি চালক বা বাস চালক আপনাকে কোনও পরিষেবা দেবেন না, তা সে পরিস্থিতি যতটা কঠিনই হোক।

“অন্য রোগীদের কী দোষ?”— এ কথা যাঁরা বলছেন, তাঁরা সরকারকে প্রশ্ন করুন। কেন হাসপাতালগুলিতে পোস্টেড পুলিশ কর্মকর্তারা ডাক্তারদের রক্ষা করার জন্য কিছুই করতে পারছেন না ?

অনুগ্রহ করে তাঁদের আরও প্রশ্ন করুন যে, যখন ২ টি ট্রাক বোঝাই গুণ্ডাদের দেখা গিয়েছিলো, কেন তখন অবিলম্বে সাহায্য পাঠানো হয়নি?

কেন এখনও গুন্ডারা হাসপাতালের পার্শ্ববর্তী এলাকায় মজুত রয়েছে এবং ডাক্তারদের মারছে।

প্লীজ জিজ্ঞাসা করুন।

আমাদের শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ করার অধিকার আছে।

আমাদের কাজের নিরাপত্তার অধিকার রয়েছে।

পুনশ্চ: একজন টিএমসি সমর্থক হিসাবে আমি আমাদের নেতার নিষ্ক্রিয়তা এবং নীরবতায় গভীরভাবে লজ্জিত। #

#সমাজে মেরুদণ্ড সোজা করে যারা এখনও সাদাকে সাদা কালোকে কালো বলেন তাদের মধ্যে সাবা হাকিম অন্যতম।  সাবা আমাদের কবি-সাহিত্যিকদের নাকে ঝামা ঘষে দিয়েছেন।

# মুখ্যমন্ত্রীর কী করা উচিত ছিল।

১) সেদিন রাতেই তিনি এন আর এস হাসপাতালে যেতে পারতেন। রাতে তো তিনি কালিঘাট থানায় গিয়েছিলেন।

২) সাবা হাকিমের কথা সত্য হলে দুট্রাক গুণ্ডা কি করে হাসপাতালে ঢুকতে পারলো,তা তিনি খোজ নিতে পারতেন।

৩) তিনি তা না করে ডাক্তারদের গায়ে রাজনৈতিক ছাপ দিয়ে দিলেন। এটা না করলেই পারতেন।

৪) তিনি বলেছেন,সিসি টিভিতে দেখা গেছে,ডাক্তাররাও মারপিটে অংশ নিয়েছে। হাসপাতালে বহিরাগতরা অবাধে ঢুকে মারবে,তার প্রতিরোধ করার অধিকার কি তাদের নেই?

পুলিশ কি করছিল?  খোজ নিলেই জানতে পারবেন।

## সবশেষে আবার বলি,ধন্যবাদ মন্ত্রী-মেয়র কন্যা সাবা।

চাপের কাছে সবাই প্রায়  নত তখন সাবা, তুমি বিরল।

এটাই তো মানুষের ধর্ম।

এই রাজধর্ম পালন যাদের করার কথা তারা এখন অন্য কিছু ভাবছে।

তবে,সাবাকে বহিস্কার করার কেউ নেই।

একেই বলে সমাজকর্মী। সাবাস সাবা হাকিম।।।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here