শুভেন্দু, দীলিপের ছবিতে মালা পরিয়ে তর্পন! বিতর্কে মদন!

0
74

নিজস্ব সংবাদদাতা, কলকাতাঃ ফের বিতর্কের শিরনামে তৃণমূল বিধায়ক মদন মিত্র। এবার মহলয়ার কাক ভোরে শুভেন্দু অধিকারী ও দিলীপ ঘোষের ছবিতে মালা পড়িয়ে বিজেপির বিদায় চেয়ে তর্পন করে বিতর্কে জরালেন কামারহাটির বিধায়ক মদন মিত্র। রবিবার মহলায়ার দিনে এই ছবি ধরা পড়ল কলকাতার বাবুঘাটের গঙ্গার বিসর্জন ঘাটে। এই ঘটনায় হতবাক গঙ্গার ঘাটে পিতৃতর্পণ করতে আসা সাধারণ মানুষজন। আর এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই ছিঃ রোল পরে গেলো গোটা রাজ্য জুরে।

আজ মহালয়া। এই দিনেই গোটা বাংলার সাধারণ মানুষ পিতৃকুলের পুর্ব পুরুষদের আত্মার শান্তি কামনায় ভিড় জমান বিভিন্ন নদী ঘাটে। পূর্বপুরুষদের উদ্দেশ্যে তিল জল অর্পন করেন। এবার সেই পিতৃ তর্পনও জরিয়ে পরলো রাজনীতিতে। এদিন সকালে কলকাতার গঙ্গার বাবুঘাটে তর্পন করতে যান কামারহাটির তৃণমূল বিধায়ক মদন মিত্র। তর্পন করতে এদিন তিনি সঙ্গে করে নিয়ে যান রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী ও বিজেপির সর্বভারতীয় সহঃ সভাপতি দিলীপ ঘোষের ছবি। বাবুঘাটের বিসর্জন ঘাটে একটি গাছের তলায় এই দুই বিজেপি নেতার ছবি প্রতিষ্ঠিত করে মালা পড়ান মদন মিত্র। মদন মিত্র যখন বিজেপি নেতাদের ছবিতে মালা দিচ্ছিলেন, তখন ‘বলো হরি, হরি বোল’ রবও শোনা গিয়েছে অনুগামীদের মুখে। এদিন মদন মিত্র বলেন, ‘আগামী পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপির রাজনৈতিক অপমৃত্যু ঘটতে চলেছে, সেই সময় আর তর্পণ করার লোক থাকবে না। তাই আমি আগাম তর্পণ করে গেলাম’। তিনি আরও বলেন, যাদের ছবিতে মালা পড়ানো হল তাঁরা ব্যক্তিগত জীবনে পরিবার পরিজনদের নিয়ে সুস্থ থাকুন, দীর্ঘায়ু হোক।

এই ঘটনায় গোটা রাজ্য জুরে ফের বিতর্ক উস্কে দিলেন তিনি। বাবুঘাটে এদিন যা ঘটালেন মদন মিত্র তা বাংলার রাজনীতিতে নজিরবিহীন। মদন মিত্রের এই কীর্তি বাবুঘাটে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে প্রত্যক্ষ করেন প্রচুর মানুষ। অনেকের কাছেই বিষয়টি হাসির খোরাক হলেও, অনেকেই সমালোচনায় বিদ্ধ করেছেন মদন মিত্রকে। বিজেপির দুই নেতার ছবিতে মালা পড়িয়ে বিজেপির আগাম তর্পন নিয়ে কড়া ভাষায় সমালোচনা করেছেন বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বাংলার সংস্কৃতি, সনাতন ধর্মকে কালিমালিপ্ত করেছেন মদন মিত্র। আসলে তৃণমূলের বিদায় আসন্ন, তাই তর্পনেও রাজনীতির ছোঁয়া লাগিয়ে নিজেকে জিরো থেকে হিরো বানানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তৃণমূল বিধায়ক’। অন্যদিকে সিপিএম, কংগ্রেসের পক্ষেও এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here