সঙ্ঘমিত্রা সাক্সেনা: সিনেমা কেবল বিনোদন নয় সে যে আমাদেরই সমাজের আয়না। যাতে বার-বার ধরা পড়ে বাস্তবের মুখ। একাধিক বার্তা বহনকারী যদি কেউ থাকে তার আর এক নাম হলো সেই সিনেমা।

সিনেমা দেখতে গিয়ে সব সময় নতুনের  স্বাদ পাই আমরা যা স্বভাবতই আমাদের মানসিক তৃপ্তির সঙ্গে পারিপার্শ্বিক এবং সাংস্কৃতিক বোধকেও পরিশীলিত  করে। এবার সেই বোধকেই ত্বরান্বিত করতে এবং সিনে-প্রিয় খাদ্য রসিক বাঙালি কে মুগ্ধ করতেই রিলিজ হলো রঞ্জন ঘোষ পরিচালিত ছবি আহারে।

আহারে কথাটির ব্যাখ্যা কিন্তু অনেক ভাবে করা যায় এই যেমন ধরুন না কোন সুন্দর মনোরম দৃশ্য বা হয়ত কোন সূক্ষ্ম তৃপ্তি আবার হয়তো স্নেহের ভাষা কে বোঝানোর ও একমাত্র উপায় সেই ‘আহারে’। তবে এবার কিন্তু তার ভালোবাসার বন্ধনে সে জুড়ে দিয়েছে এপার বাংলার সাথে ওপার বাংলাকে।

দুই বাংলার সংস্কৃতিকে তুলে ধরেছে রান্নার স্বাদে। এপার বাংলার চিংড়ি আর ওপার বাংলার ইলিশ যেন ডুব দিয়েছে একই ঝোলে। এক কথায় বলা যায় আহারে হলো দুই বাংলার দুটি মানুষের ভালোবাসার গল্প যার সূত্রপাত সেই রান্নাঘর, যার মধ্যে দর্শককে প্রবেশ করতেই হবে না হলে দুই ভিন্ন দেশের ভালোবাসার হদিশ পাবেন কি করে?
গল্পটা হল ঢাকার একজন বাঙালি মুসলমান শেফের ঘটনাক্রমে যার পরিচয় হয় কলকাতার একজন বাঙালি হিন্দু হোম কুকের সঙ্গে।

তারপরে রান্নার মাধ্যমেই শুরু হয় দুজনের ভালোবাসার খোঁজ এবং সেটা পাওয়ার গল্পই হল আহারের মূল বিষয়বস্তু। হাসি ঠাট্টা এবং আবেগে ভরা এই ছবির প্রধান চরিত্রে রয়েছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত এবং আরিফিন শুভ ছবি সম্পর্কে বলতে গিয়ে আরিফিন বলে ‘এই ছবি করতে গিয়ে জীবনের গল্প খুঁজে পেলাম’ অন্যদিকে ঋতুপর্ণার বক্তব্য একেবারেই ভিন্ন স্বাদের গল্প আহারে যার স্বাদ নিতে দর্শককে প্রেক্ষাগৃহে আসতেই হবে। ডটকম এর যুগে রান্নাও যে প্রেমের মাধ্যম হয়ে উঠতে পারে তার প্রমান ঋতু-আরফিনের ‘।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here