অমিত শাহ’র সভায় লোক জমায়েত করতে প্রচারে নামলেন খোদ বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাস বিজয় বর্গী

0
69

 

 

নিজস্ব প্রতিনিধি :.সর্ব ভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ’র সভায় লোক জমায়েত করতে প্রচারে নামলেন খোদ বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাস বিজয় বর্গী।

বুধবার তিনি কোচবিহার শহরের ভাবানিগঞ্জ বাজারে গিয়ে ব্যাবসায়ী সাধারণ বাসিন্দাদের সভায় যাওয়ার জন্য হাত জোড় করে আবেদন জানান। এদিন ওই প্রচারে কৈলাস বিজয় বর্গী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন উত্তর প্রদেশের প্রাক্তন বিজেপি সভাপতি সুরেশ আগস্তি সহ রাজ্য ও জেলার নেতৃত্বরা।

প্রচারের পাশাপাশি কৈলাস বিজয় বর্গী সভাস্থল ঝিনইডাঙ্গাতেও গিয়েছিলেন বলে জানা গিয়েছে। এদিন বিকেলে পাশের জেলা আলিপুরদুয়ারে গণতন্ত্র বাঁচাও যাত্রার উদ্বোধনী সভার প্রচারে মুকুল রায়েরও একাধিক কর্মসূচী রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

এদিন কোচবিহারে প্রচার চালানোর সময় কৈলাস বিজয় বর্গী বলেন, “সভায় যাতে লোক না আসতে পারে তার জন্য বাস বা অন্যান্য গাড়ি ভাড়া না দেওয়ার মালিকদের হুমকি দেওয়া হয়েছে। এরপরেও অমিত শাহ’র সভায় ব্যাপক জনসমাগম হবে।”

তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব যদিও কোন গাড়ির মালিককে বারন করার কথা অস্বীকার করেছে। তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা সভাপতি তথা উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ বলেন, “বিজেপির মত সাম্প্রদায়িক দলকে বাংলার মানুষ এতটাই ঘৃণা করে যে কেউ গাড়ি ভাড়া তো দূরের কথা কোন ভাবেই সাহায্য করতে চাইছেন না।”

৭ ডিসেম্বর কোচবিহার থেকে গণতন্ত্র বাঁচাও রথ যাত্রা শুরু করবে বিজেপি। ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কের পাশে নাটাবাড়ী বিধানসভা কেন্দ্রের ঝিনইডাঙ্গায় ওই রথযাত্রার উদ্বোধনী সভা করবেন বিজেপির সর্ব ভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। সভাস্থলে মঞ্চ তৈরি সহ সমস্ত রকম প্রস্তুতি নিতে বিজেপি নেতা কর্মীরা কার্যত কোমর বেঁধে নেমে পড়েছেন। এদিন ঝিনইডাঙ্গা এলাকায় গিয়ে সরজমিনে মঞ্চ বাঁধার কাজও দেখে আসেন কৈলাস বিজয় বর্গী। ওই সভা নিয়ে তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যে ব্যাপক চাপানউতোর শুরু হয়েছে। রাজ্যের শাসক দল সভায় লোক আসা আটকাতে সব রকম ভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে বিজেপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে।

বিজেপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে, বাড়ী বাড়ী গিয়ে সভায় না যাওয়ার জন্য বিজেপি কর্মী সমর্থকদের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। প্রচার করতে গেলে বাধা দেওয়া হচ্ছে। গাড়ি ভাড়া দেওয়া হচ্ছে না।

অন্যদিকে তৃণমূল কংগ্রেস পাল্টা দাবী করে জানিয়েছে, সভায় লোক হবে না বুঝতে পেরে বিজেপি এখন তাঁদের বিরুদ্ধে মিথ্যে দোষারোপ করে পাড় পেতে চাইছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here