ফেসবুকে স্ত্রীকে অশালীন মন্তব্য করার অভিযোগে থানায় ধরে এনে অভিযুক্ত যুবককে মারধর

0
48

নিজস্ব প্রতিনিধি : ফেসবুকে স্ত্রীকে অশালীন মন্তব্য করার অভিযোগে থানায় ধরে এনে অভিযুক্ত যুবককে মারধর করার অভিযোগ উঠল আলিপুরদুয়ার জেলা শাসক নিখিল নির্মল ও তার স্ত্রী নন্দিনী কিষানের বিরুদ্ধে।

এমনকি অভিযুক্তকে মেরে ফেলার হুমকি দেন জেলাশাসক। পরে যদিও তিনি অস্বীকার করেছেন। ঘটনার কিছু পরেই ফালাকাটা থানার ভিতরের মারধরের দৃশ্যটির ভিডিও ভাইরাল হয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

ফলাকাটা থানার পুলিশ সূত্রের জানা যায়, শনিবার জেলাশাসকের স্ত্রী নন্দিনী কিষান কে একটি গ্রুপে অ্যাড করে তার ফেসবুক ফ্রেন্ড অভিযুক্ত বিনোদ কুমার সরকার নামে এক যুবক। ওই ঘটনার অভিযোগ দায়ের করেন নন্দিনী কিষান।

অভিযোগ পেয়েই অভিযুক্ত যুবককে গ্রেফতার করে পুলিশ। সেই খবর জানতে পেরেই রবিবার সস্ত্রীর ফালাকাটা থানায় চলে আসেন জেলাশাসক নিখিল নির্মল। তার পরে বেধড়ক মারধর শুরু করেন ওই যুবককে।

এমনকি ভিডিওতে তাঁকে বলতে শোনা যায় যে, তাঁর জেলায় তাঁর বিরুদ্ধে কেউ কোনও কথা বলবে না। শুধু নিখিল নির্মল নন, ওই যুবককে মারধর করেন তাঁর স্ত্রী-ও। এবং তাকে রীতিমতো জেরা করতে শুরু করে দেন যে, কার বুদ্ধিতে ওই যুবক ফেসবুকে অশালীন মন্তব্য করেছেন। গোটা ঘটনাটিই ঘটে ফালাকাটা থানার আই সি সৌমজিৎ রায়ের সামনে।

পরে জানা গেছে, এই ভিডিও সোস্যাল মিডিয়া ভাইরাল হওয়া মাত্র বিভিন্ন মহলে নিন্দার ঝড় উঠেছে। তারপর জেলাশাসক নিখিল নির্মলকে বাধ্যতামূলক ১০ দিনের ছুটিতে পাঠানো হয়েছে। তবে একই সঙ্গে প্রশ্ন উঠেছে ফালাকাটা থানার আইসি-কেই বা কেন ছুটিতে পাঠানো হবে না। কারণ, তাঁর সামনেই ঘটনাটি ঘটেছে এবং তিনি কোনও ভাবেই জেলাশাসককে বাধা দেননি।

এ ব্যাপারে জেলা শাসকের কোনও প্রতিক্রিয়া এখনও পাওয়া যায়নি। তবে জেলা প্রশাসনের একাধিক কর্তার বক্তব্য, স্ত্রী-র সম্পর্কে অশালীন মন্তব্য শুনে হয়তো মেজাজ ঠিক রাখতে পারেননি জেলাশাসক। তাঁর বয়স কম। অভিজ্ঞতাও কম।
এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন এ পি ডি আরের সাধারণ সম্পাদক জাতিশ্বর ভারতী। তিনি বলেন, একজন জেলা শাসক তিনি জেলার কর্তা। তার থানার ভিতরে ঢুকে এভাবে মারধর করা উচিত হয় নি। যদি তার স্ত্রীকে কেউ ফেসবুককে অশালীন মন্তব্য করে থাকেন তাহলে সেটা সাইবার ক্রাইম আইনে তদন্তের বিষয়। অথবা পুলিশ আইনানুসারে ব্যবস্থা নিতে পারেন। কিন্তু জেলাশাসক নিখিল নির্মল তার স্ত্রীকে নিয়ে থানার ভিতরে ঢুকে পুলিশের সামনে মারধর করে ও অভিযুক্ত যুবকের প্রাণ নাসের হুমকি দেয় এটা মেনে নেওয়া যায় না। এটা অত্যন্ত নিন্দনীয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here