“ব্রিগেডে যাচ্ছি সিট ছাড়ব না”,ট্রেনে দাদাগিরি তৃনমূলকর্মীদের

0
47

নিজস্ব সংবাদদাতা, বোলপুর, বীরভূম: – আগামীকাল তৃণমূলের ব্রিগেড সভা। সেইজন্য দুরদূরান্ত থেকে এইসভায় যোগ দিতে আসছেন তৃণমূল নেতা-কর্মীরা।

ব্রিগেড সভাকে কেন্দ্র করে বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল আগেই বলেছিলেন, “বীরভূম থেকে ৫ থেকে ৬ লাখ কর্মী সমর্থক ব্রিগেডে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্য রয়েছে।”

সেইজন্য বীরভূমে প্রত্যেকটি স্টেশনে তৃনমূলের নেতা, নেত্রী ও কর্মী সমর্থকদের ভিড় রয়েছে চোখে পড়ার মতো। কিন্তু এইদিকে ট্রেনের রিজ়ারভেশন কামরা গুলিও রয়েছে তাদের দখলেই।

সংশ্লিষ্ট যেসব যাত্রীরা ট্রেনের রিজ়ারভেশন আসন আগে থেকেই বুকিং করেছিলেন সেইসব যাত্রীরা আসন ছাড়ার কথা বললেই তারা শুধু একটা কথাই বলছে,”আমরা ব্রিগেড যাচ্ছি মন্ত্রীদের মিটিংয়ে। সিট ছাড়ব না।

” তৃনমূলের কর্মীদের এইরকম আচরণের ফলে চরম বিপাকে পড়েছেন ট্রেনের নিয়মিত যাত্রী থেকে শুরু করে রিজার্ভেশন কামরার যাত্রীরাও।

আগামীকাল ব্রিগেডে সমাবেশকে সামনে রেখে আজ সকাল থেকেই বিভিন্ন স্টেশনে শিবির করে তৃনমূলের দলীয় ব্যাজ বিতরণ করছেন তৃণমূল নেতৃত্ব। কিন্তু,বীরভূমে রামপুরহাট স্টেশনে দেখা গেল অন্য দৃশ্য।

দেখা যাচ্ছে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর “ব্রিগেড চলো” ব্যাজ বুকে এঁটে ট্রেনের রিজ়ারভেশন কামরাগুলিও দখল করে নিয়েছে তৃণমূল কর্মীরা। ট্রেনের আসনগুলি রিজার্ভেশন আছে দাবি করলেও জোর করে ওই আসনে বসে আছে তৃণমূল কর্মীরা।

এঁদের মধ্যেই একজনকে বলতে শোনা গেল, “রিজ়ারভেশন বুঝি না, মন্ত্রীদের মিটিংয়ে যাচ্ছি সিট কেনো ছাড়বো”।

ব্রিগেডে সমাবেশের আগের দিন যাত্রীদের এমনই হেনস্থার স্বীকার হতে হলো রামপুরহাট স্টেশনে।

যাত্রীদের এইরকম হেনস্থার স্বীকারের জন্য রামপুরহাট তৃণমূল কংগ্রেসের যুব সভাপতি জানান, “ওরা অনেকেই এই বিষয়টা জানে না। তাই রিজার্ভেশন আসনে বসে আছে। এটা কিন্তু অন্যায়।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here