বিপদের তোয়াক্কা করছেন না সোনামুখী রনডিহার পর্যটকরা

0
43

 

তারাশঙ্কর গুপ্ত, বাঁকুড়ার : শীতের পড়তেই পর্যটকদের সংখ্যা বাড়তে শুরু করেছে বাঁকুড়ার পর্যটন কেন্দ্রগুলিতে । সোনামুখীর রাধামোহনপুর এলাকার রণডিহা জলাধারে ও পিকনিকের মরশুমে পর্যটকদের সংখ্যা বাড়তে শুরু করেছে।

দামোদর নদীর এই জলাধারকে কেন্দ্র করেই বাড়ছে পর্যটকের সংখ্যা। বাঁকুড়ার গণ্ডী ছাড়িয়ে এখন পুরুলিয়া, দুর্গাপুর, বর্ধমান এমনকি পাশের রাজ্য গুলি থেকেও মানুষ আসছেন এখানে। কিন্তু এতো সবের পরেও রণডিহা জলাধারে নিরাপত্তার কড়াকড়ি না থাকায় প্রশাসনিক উদাসীনতা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

এখানে আসা পর্যটকদের একটা অংশ ‘অ্যাডভেঞ্চারে’র নেশায় এই জলাধারের সু-উচ্চ গেটে উঠে পড়ছেন। এই কাজে ছোটো-বড় কোন বাছবিচার নেই। নিরাপত্তার কোন ব্যবস্থা না থাকায় যখন তখন যে খুশি উঠে পড়ছেন জলাধারের গেটে। এরফলে যেকোন সময় একটা দূর্ঘটনার আশঙ্কা থেকেই যায়। এই ধরণের নিরাপত্তাহীনতা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন শুভবুদ্ধি সম্পন্ন পর্যটকদের একাংশ। রণডিহা জলাধারে পিকনিক করতে আসা বাঁকুড়ার ধূলাই এলাকার সৌমেন মণ্ডল বলেন, এখানে এই সমস্যা দীর্ঘদিনের।

প্রায় প্রতি বছরই এখানে আসি। আর এই এক ছবি প্রতিবার দেখা যায়। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জলাধারের গেটে উঠে পড়া অতিউৎসাহী পর্যটকদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের কাছে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেন তিনি। অন্য আর এক পর্যটক সহদেব রায় বলেন, বিপদ তো আর বলে কয়ে আসেনা। এই অবস্থায় বিপদ যেকোন সময় হতে পারে। সংশ্লিষ্ট পর্যটকদের যেমন এবিষয়ে সচেতন হওয়া জরুরি তেমনি প্রশাসনিক হস্তক্ষেপ জরুরি বলেও তিনি মনে করেন।

এবিষয়ে সোনামুখী পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি প্রণব রায়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এখনো পর্যন্ত্য তেমন কোন খবর নেই। এটা ঠিক প্রতিবছর রণডিহা জলাধারে পর্যটকদের সংখ্যা বাড়ছে। অবাঞ্ছিত ঘটনা এড়াতে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যেহেতু এই জলাধার ডিভিসি কর্ত্তৃপক্ষ দেখাশোনা করে, তাই নিরাপত্তা বাড়াতে তাদের সঙ্গেও যোগাযোগ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here