বেঙ্গল ওয়াচ ডেস্ক ::২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে দুবাইয়ে একটি হিন্দু মন্দির স্থাপনের শিল্যান্যাস হয়।

 

 

 

 

 

তারপর দুর্গা পুজোকে কেন্দ্র করে খুলে গেল সেই মন্দির।

দুবাইয়ের জিবেল আলি এলাকায় এই মন্দির তৈরি করা হয়েছে। গত তিন বছর ধরেই এই মন্দির তৈরির কাজ চলছিল। এই মন্দিরে প্রার্থনা ঘর ছাড়াও রয়েছে ১৬ টি দেব-দেবীর মূর্তি। রয়েছেন শিব, দেবী মহালক্ষী, শ্রীকৃষ্ণ এবং গণেশের মূর্তি।প্রায় ৮০ হাজার স্কোয়ার ফুট জায়গা নিয়ে সুবিশাল এই মন্দির তৈরি হয়েছে। এই মন্দির কার্যত সবধর্ম সমন্বয়ের নজির। কারণ মন্দিরে রাখা রয়েছে গুরুগ্রন্থ সাহিব। আরব আমিরশাহির মিনিস্টার অফ টলারেন্স শেখ নাহান বিন মুবারক আল নাহান  এই নতুন মন্দির উদ্বোধন করেন।অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ভারতীয় রাষ্ট্রদূত। বলে রাখা প্রয়োজন, ২০২০ সালে ফেব্রুয়ারি মাসে এই মন্দির তৈরির শিলন্যাস করা হয়েছিল। এরপরেই শুরু হয় কাজ। দীর্ঘদিন ধরেই দুবাইয়ের প্রবাসীদের একটা ইচ্ছা ছিল যে সেখানেই একটি হিন্দু মন্দির তৈরি হোক। প্রার্থনা  ঘর সহ সমস্ত মন্দিরে আছে সমস্ত ধর্মের প্রতি সনাতন ধর্মের শ্রদ্ধা নিবেদনের চিত্র।
মন্দির কয়েকদিন আগে উদ্বোধন হলেও আজ বুধবার থেকে সাধারণ মানুষের জন্যে খুলে দেওয়া হল তা। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, এই মন্দিরে সমস্ত ধর্মের মানুষই আসতে পারবেন। একেবারে সাদা মার্বেল দিয়ে  সমস্ত মন্দির নির্মিত।
এই মন্দিরটি আসলে সিন্ধি গুরু দরবার মন্দিরের সম্প্রসারিত অংশ । যা একেবারে নতুন ভাবে তৈরি করা হয়েছে। তবে একসঙ্গে যাতে বহু মানুষ ভিড় না জমান সেদিকে তাকিয়ে বাড়তি কিছু ব্যবস্থা রাখা হয়েছে নয়া এই মন্দিরে। কিউ আর কোড সিস্টেমের মাধ্যমে এই মন্দিরে ঢোকার জন্য আগাম বুকিং করে ফেলা যাবে। রিপোর্ট অনুযায়ী ছুটির দিন কিংবা উইকেন্ডে বহু মানুষ ভিড় জমাবেন মন্দিরে।

আর সেখানে করোনা বিধি উলঙ্ঘন হবে। আর তাই অত্যাধুনিক এই সমস্ত ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে খবর। সাদা মার্বেল দিয়ে এই মন্দির তৈরি হলেও ভিতরে এবং বাইরে অসাধারণ কারুকাজ। আরবিক ও ভারতীয় স্থাপত্যের ছোঁয়া দেখতে পাওয়া  যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here