বেঙ্গল ওয়াচ ডেস্ক ::রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে আইনভঙ্গে়র অভিযোগ পুলিশে।

 

 

 

 

যা নিয়ে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ঘটনাটি বিজেপি শাসিত অসমের। শনিবার অসমের কাজিরাঙ্গা জাতীয় উদ্যানে জিপ সাফারির সময় বণ্যপ্রাণ সুরক্ষা আইনলঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছিল রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মার বিরুদ্ধে। তাঁর সঙ্গী আধ্যাত্মিক নেতা সদগুরু এবং অন্যদিরে বিরুদ্ধেও রবিবার পুলিশ অভিযোগ দায়ের করেছে।

রাজ্য পুলিশের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, জাতীয় উদ্ধানের ধারে বসবাসকারীরা গোলাঘাট টজেলার বোকাখাত থানায় অভিযোগটি দায়ের করেছেন। ওই আধিকারিক আরও জানিয়েছেন, তারা বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু করেছেন। কাজিরাঙ্গা জাতীয় উদ্যান বনবিভাগের অধীনে পড়ায় ওই পার্কের বিভাগীয় আধিকারিকের কাছ থেকে অভিযোগ সম্পর্কে একটি স্ট্যাটার রিপোর্ট চাওয়া হয়েছে।

যদিও এব্যাপারে কাজিরাঙ্গা জাতীয় উদ্যানের তরফে কোনও মন্তব্য করতে অস্বীকার করা হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক আধিকারিক বলেছেন, একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তার ভিতিতেই তদন্ত করা হবে। বিষয়টি খতিয়ে দেখার আগে তারা এব্যাপারে কোনও মন্তব্য করতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন। ঘটনাটি বন্যপ্রাণী সুরক্ষা আইনের লঙ্ঘন কিনা, সে ব্যাপারে তিনি কোনও উত্তর দিতে চাননি।

কাজিরাঙ্গা জাতীয় উদ্যানের ওই আধিকারিক বলেছেন, সেখানে একটি সরকারি অনুষ্ঠান ছিল। কখনও কখনও এই ধরনের অনুষ্ঠান একটু দেরিতে শুরু হয়। এই পরিস্থিতিতে তিনি মনে করেন না আইন লঙ্ঘনের মতো ঘটনা ঘটেছে। প্রসঙ্গত যে অভিযোগটি দায়ের করা হয়েছে, তা সন্ধের পরে জিপ সাফারি নিয়ে।
মরঙ্গিয়াল ও বালিজান আদর্শ মডেল গ্রামের বাসিন্দা সোনেশ্বর নারাহ এবং প্রবীণ পেগু অভিযোগ করেছিলেন, সন্ধের পরে গাড়ির হেডলাইট জ্বালিয়ে জিপ সাফারই করে বন্যপ্রাণী সুরক্ষা আইন ১৯৭২ লঙ্ঘন করা হয়েছে।
অসমের মুখ্যমন্ত্রী সাফারির একটি ছোট ভিডিও শেয়ার করেছিলেন। ঈশা ফাউন্ডেশনের নেতা সদগুরু, রাজ্যের মন্ত্রী, বিধায়ক এবং আমলাদের নিয়ে তিনদিনের চিন্তন শিবিরের আয়োজন করা হয়েছিল কাজিরাঙায়।

মুখ্যমন্ত্রী ছাড়াও এই মামলায় অন্য অভিযুক্তরা হলেন, জগদীশ জগ্গি বাসুদেব, সরমা, পর্যটনমন্ত্রী জয়ন্ত মাল্লা বড়ুয়া। জিপ সাফারিতে অংশ নেওয়া এইসব ব্যক্তিদের গ্রেফতারের দাবি তুলেছিলেন অভিযোগকারীরা। না হলে আইনলঙ্ঘনকারীরা যেন প্রকাশ্যে ক্ষমা চান, সেই দাবি তুলেছিলেন অভিযোগকারীরা।
অভিযোগকারীরা বলেছিলেন. পার্কের সুরক্ষার জন্য তাঁরা তাদের জমি দিয়েছেন। গবাদী পশু বলি দিয়েছেন। তারা অনেক কষ্ট করে নিয়ম ও আইন মেনে চলছেন। কিন্তু ভিআইপিরা আইনের প্রতি নির্লজ্জ অবহেলা করছেন বলে অভিযোগ করেছেন তাঁরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here