বেঙ্গল ওয়াচ ডেস্ক ::রজার-রাজার বিদায়!

 

 

 

 

 

পেশাদার টেনিসে শেষ ম্যাচটি খেলে ফেললেন বিশ্বের প্রাক্তন ১ নম্বর তারকা। রাফায়েল নাদালকে সঙ্গী করে ডাবলস ম্যাচটি খেলতে নেমেছিলেন ফেডেরার। যদিও বিদায়ী ম্যাচে জেতা হলো না সুইস কিংবদন্তির। আর এরপরই দেখা গেল আবেগঘন পরিস্থিতি। টিম ইউরোপের সতীর্থদের পাশাপাশি ফেডেরারকে কাঁধে তুলে নিলেন প্রতিপক্ষের তারকারাও। ফেডেরারের বিদায়ে চোখে জল নাদালেরও।

রজার ফেডেরারের সঙ্গে রাফায়েল নাদালের দ্বৈরথ প্রায় দুই দশক ধরে উপভোগ করেছেন টেনিসপ্রেমীরা। শেষ ম্যাচে দুজনে একসঙ্গে খেললেন। আন্তর্জাতিক টেনিস কেরিয়ারের শেষ ম্যাচে ফেডেরারের চোখে জল আসাটা অস্বাভাবিক নয়। তবে রাফায়েল নাদালের কান্না বলে দিল কতটা আবেগঘন ছিল ফেডেরারের বিদায় মুহূর্তটি। লেভার কাপে নামার আগে শেষ ম্যাচে নাদালের সঙ্গে জুটির নাম ফেডাল রেখেছিলেন ফেডেরারই। যদিও তাঁরা পরাস্ত হলেন টিম ওয়ার্ল্ডের জ্যাক সক ও ফ্রান্সেস তিয়াফোর কাছে। খেলার ফল ৬-৪, ৬-৭, ৯-১১।

ম্যাচের শেষে ফেডেরার আলিঙ্গন করলেন নাদালকে। জড়িয়ে ধরলেন সক ও তিয়াফোকেও। ৪১ বছরের ফেডেরার বললেন, আরও একবার খেলতে পারাটা দারুণভাবে উপভোগ করেছি। সব কিছুরই একটা শেষ থাকে। কেরিয়ারের বিদায় মুহূর্তটাও তিনি যে উপভোগ করলেন সেটাও জানিয়েছেন ফেডেক্স। আরও জানান, ঠিক যেমনটা ভেবেছিলেন, বিদায়বেলায় তার সব কিছুই পারফেক্ট ছিল। এমন অনুভূতিরই সাক্ষী থাকতে চেয়েছিলেন। সতীর্থদের ফেডেরার বলেছেন, আমার কোনও দুঃখ নেই। আমি খুশি। সামগ্রিকভাবে অনুভূতি এক কথায় গ্রেট। নাদালের সঙ্গে একই দলের হয়ে শেষ ম্যাচ খেলতে পারা, রড লেভার, এডবার্গ, স্টেফানদের উপস্থিতিতে শেষ ম্যাচটিও দারুণ ছিল বলেই জানিয়েছেন রজার। তাঁর কথায়, এর থেকে সুখের কিছু হতে পারে না। দারুণ সময় কাটালাম।

দর্শকরা করতালি দিলে ফেডেরারকে উৎসাহিত করে গেলেন। গ্যালারিতে সন্তানদের নিয়ে ছিলেন স্ত্রী মিরকা, ছিলেন ফেডেরারের বাবা-মাও। ম্যাচ শেষের পর কোর্টে তাঁদেরও দেখা গেল ফেডেরারের সঙ্গে। সতীর্থ ও প্রতিপক্ষরা কাঁধে তুলে যেভাবে ফেডেরারের পেশাদার টেনিসের বিদায় মুহূর্তটিকে স্মরণীয় করে রাখলেন তাতে যেন পূর্ণতা পেল সেলিব্রেশন।

ফেডেরার ও নাদাল প্রথম সেটটি জিতে নিয়েছিলেন। ৫-৪ ব্যবধানে এগিয়ে যাওয়ার পর প্রতিপক্ষ জুটির সার্ভ ব্রেক করে দখলে নেন প্রথম সেট। কিন্তু দ্বিতীয় সেটে দ্রুত ফেডাল জুটির সার্ভ ব্রেক করেন সক ও তিয়াফো। ৩-১ ব্যবধানে এগিয়ে গিয়ে টিম ইউরোপের উপর চাপ বাড়ান। যদিও সার্ভ ব্রেক করে একটা সময় ফেডেরার ও নাদাল ৪-৩ ব্যবধানে এগিয়ে যান। পরে তা বেড়ে হয় ৬-৫। একটা গেম জিতলেই ম্যাচ চলে আসত ফেডেরারদের পক্ষে। যদিও টিম ওয়ার্ল্ডের জুটি এই সেটটি জিতে নিতে সক্ষম হয়। তৃতীয় তথা নির্ণায়ক সেটেও ফেডেরাররা ম্যাচ পয়েন্ট পেয়েছিলেন। কিন্তু আসল কাজটা শেষ অবধি সারতে পারেননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here