বেঙ্গল ওয়াচ ডেস্ক ::সামনেই কংগ্রেস সভাপতি পদের জন্য নির্বাচন।

 

 

 

 

 

 

আর তা ঘিরেই চড়ছে ক্রমশ পারদ। সভাপতি পদের জন্যে লড়াইয়ে একাধিক নাম সামনে আসছে। তবে গান্ধী পরিবার থেকে সভাপতি পদে কেউ লড়ছেন না বলেই খবর। এমনকি রাহুল গান্ধীও লড়াইয়ের ময়দানে নামছেন না বলেই খবর।

আপাতত ভারত জড়ো যাত্রাতে ব্যস্ত রাহুল থাকবেন বলেই খবর। লোকসভা নির্বাচনের আগে দেশজুড়ে কংগ্রেস নেতাকর্মীদের চাঙ্গা করতেই এহেন কর্মসূচি বলে দাবি নেতৃত্বের।

ভারত জড়ো যাত্রাতে অংশ নেন আজ রাহুল গান্ধী। সেখানে তিনি ‘এক ব্যক্তি এক পদে’র সমর্থনে কথা বলেন তিনি। বলে রাখা প্রয়োজন, সভাপতির দৌড়ে অনেকটাই এগিয়ে রয়েছেন রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট। আর রাহুল ইঙ্গিত যে তাঁর প্রতি কার্যত তা স্পষ্ট। দুটি পদে যে একসঙ্গে থাকা যাবে না সেই বার্তা রাহুল দিতে চাইলেন তা স্পষ্ট। বলে রাখা প্রয়োজন, গেহলট এর আগে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন যরাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী এবং সভাপতি পদে থাকতে সমস্যা নেই। আর এরপরেই রাহুলের এহেন মন্তব্য খুবই তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে।

আজ কেরলে একটি সাংবাদিক বৈঠকে মুখোমুখি হন রাহুল গান্ধী। সেখানে তিনি বলেন, আমরা উদয়পুরে একটি কমিটমেন্ট করেছিলাম। সেটা যে পালন করা হবে সে ব্যাপারে নিশ্চিত বলে মন্তব্য করেন সোনিয়আ-পুত্র। এই পদের প্রার্থীদের পরামর্শ দেওয়ার সময় তিনি বলেন, কংগ্রেস সভাপতির পদটি একটি আদর্শিক পদ। শুধু তাই নয়, সভাপতি পদে থাকা সমস্ত দাবিদারদের বার্তা দিয়ে রাহুল বলেন, মনে রাখবেন আপনি ভারতের ভিশনের প্রতিনিধিত্ব করছেন। তবে সভাপতি পদে যে তিনি লড়বেন না সে বিষয়ে আগের সিদ্ধান্ত বহাল রয়েছে বলে জানিয়েছেন রাহুল গান্ধী।

অন্যদিকে ভারত জড়ো যাত্রা প্রসঙ্গে রাহুল জানান, এর লক্ষ্য ঘৃণা এবং দেশের হিংসার বাতাবরণকে সরিয়ে দেওয়া। দেশের মধ্যে অসহষ্ণিতা বাড়ছে বলেও মন্তব্য কংগ্রেস সাংসদের। আর সব কিছু মাথায় রেখেই এহেন পদক্ষেপ বলে মন্তব্য তাঁর। রাহুলের মতে, এই যাত্রা আমার নয়, মানুষের। আমি শুধুই অংশ নিয়েছি বলেও দাবি তাঁর।

বলে রাখা প্রয়োজন, কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারেন বলে একাধিক রাজনৈতিক সম্ভাবনা দেখা গিয়েছে। একদিকে যেমন অশোক গেহলেট, শশী থারুরের এই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার জল্পনা দেখা দিয়েছে। তেমনি মুকুল ওয়ালনিক, পবনসাল কংগ্রেসের অন্তর্বর্তী সভাপতি সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে দেখা করেছেন। অশোক গেহলট সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে দেখা করেন। তাঁক সঙ্গে কংগ্রেসের অন্তর্বর্তী সভাপতির প্রায় দুই ঘণ্টা বৈঠক হয়। আর এর মধ্যেই কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচনে প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মনীশ তিওয়ারি প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন বলে ঘনিষ্ঠ সূত্রের খবর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here