বারাসাতে বিশেষ আদালতে এসে ব্রিগেড নিয়ে বিস্ফোরক রূপা গাঙ্গুলী ও দিলীপ ঘোষ

0
55

নিজস্ব প্রতিবেদক: ব্রিগেডে না গেলে মানুষ বেঘোরে মারা পড়বেন , ‘ যাঁরা যাবেন না, তাঁরা ছবি হয়ে যাবেন’ , তোপ রূপা গাঙ্গুলীর ।   সরকারে আছেন , তাই ঘাড় ধরে আনা হবে মানুষকে । যেতে হবে তাঁদের । যেতে বাধ্য তাঁরা । না হলে তাঁরা ছবি হয়ে যাবেন । ‘

ব্রিগেড না গেলে মানুষ খুন হয়ে যাবেন এমনটাই পরোক্ষে জানিয়ে রূপা জানালেন , ব্রিগেড না গেলে দেওয়ালে ছবি টাঙ্গানো থাকবে । ব্রিগেড যদি কেউ না যান তাহলে হয় তিনি হারিয়ে যাবেন, নয় অ্যাক্সিডেন্ট হবে , তার দেহ মুখ থুবড়ে পড়ে থাকবে ।

‘ ঘাড় ধরে লোকজন কে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে ব্রিগেডে , বিষোদগার রূপা গাঙ্গুলীর । তাঁর মতে ব্রিগেডে না গেলে মানুষজন বেঘোরে মারা পড়বেন । অন্যদিকে দিলীপ ঘোষ মমতাকে বাঙ্গালীর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় লিডার মেনে নিয়েও দিলীপ ঘোষের বক্তব্য জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানালেও তাঁর প্রধানমন্ত্রীত্ব বিয়াল্লিশ টি আসন দিয়ে সফল হতে পারে না ।

তাঁর মতে এই ব্রিগেড সমাবেশ বাংলার পুরোনো ট্র্যাডিশন মেনেই হয়েছে যা কিনা বাইরের রাজ্যে অস্তিত্ব হারানো রিটায়ার্ড ও টায়ার্ড রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব দের সার্কাস ।

একই সাথে বারাসাতে এসে ব্রিগেড নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন রূপা গাঙ্গুলী ও দিলীপ ঘোষ । রূপা গাঙ্গুলী জানান , বিরোধী সফল নেত্রী হলেই আর জোট বন্ধনের চেস্টা করলেই প্রধানমন্ত্রী হওয়া যায় না ।

মমতা বন্দোপাধ্যায়কে লক্ষ্য করে তাঁর তোপ নিজের রাজ্য ও নিজের দায়িত্বে থাকা বিভাগ সামলাতে ব্যর্থ মুখ্যমন্ত্রী ।

এদিন বারাসাত এসে দিলীপ ঘোষ জানালেন , ভিন্ন রাজ্য থেকে আসা বেকার নেতারা শীতের সময় বেড়াতে এসেছেন । যাঁরা বাইরে থেকে এসেছেন তাঁদের তাঁর পরামর্শ তাঁরা গঙ্গাস্নান করে যান ।

সিবিআই নিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, এখন সিবিআই পদাধিকারিদের কেউ কেউ যে কারো হয়ে খেলছিলেন তা পরিস্কার । সিবিআই পদাধিকারি অপসারণ ইস্যূতে বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ সরাসরি ইঙ্গিত রাখলেন কংগ্রেস ও তৃণমুল কংগ্রেসের দিকে।

শনিবার বারাসাত বিশেষ আদালতে এসে ব্রিগেড সমবেশ ও সিবিআই নিয়ে তৃণমূল , ব্রিগেডে উপস্থিত আঞ্চলিক দলের নেতা এবং সিবিআই ইস্যুতে কংগ্রেস ও তৃণমূলের অবস্থান নিয়ে এভাবেই তোপ দাগেন দিলীপ ঘোষ ।

দিলীপ ঘোষের মতে , সিবিআই পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য ব্যাবস্থা নেওয়া হয়েছে । সিবিআই পদাধিকারিরা সংস্থার মর্যাদা রাখতে পারেন নি । কর্তারা স্কুলের বাচ্চাদের মত মারামারি করলে তাদের কান মূলে দিতে হবে । তাই তাদের সরিয়ে দেওয়া হয়েছে । এমনটাই জানালেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ।

কারণ পরিস্কার , কেউ কিছূ করতে চাইছেন আরেকজন তাঁকে বাধা দিচ্ছে । আলোক ভার্মা কে রাখা ও অপসারণ নিয়ে কংগ্রেসের একেক সময় অবস্থান পাল্টেছে জানিয়ে দিলীপ ঘোষের মত এর থেকে বোঝা যায় ‘ ডালমে কুছ কালা হ্যায় । ‘ মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় যখন দেখছেন সিবিআই তাঁর কালীঘাটের বাড়ির দিকে যেতে শুরু করেছে তখন তিনি ভয় পেয়েছেন । আর এই সিবিআই কে যাঁরা বদনাম করছেন তাদের সরিয়ে দেওয়া হয়েছে জানান দিলীপ ।

ব্রিগেড প্রসঙ্গে তাঁর বক্তব্যর নির্যাস ছিল , ব্রিগেডে যাঁরা এসেছেন তাঁরা কেউ কাউকে সাহায্য করতে পারবেন না । টায়ার্ড ও রিটায়ার্ড নেতা নিয়ে সার্কাস চলছে জানান দিলীপ ঘোষ ।

এদিন বারাসাত বিশেষ আদালতে তাদের বিরুদ্ধে চলা মামলায় হাজির ছিলেন বিজেপির রূপা গাঙ্গুলী , শমীক ভট্টাচার্য , লকেট ও সায়ন্তন বসু ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here