স্বাধীনতার পরে ভারতে এই প্রথমবার ফাঁসির মঞ্চে এক মহিলা # সিদ্ধার্থ সিংহ

0
52

স্বাধীনতার পরে ভারতে এই প্রথমবার ফাঁসির মঞ্চে এক মহিলা

সিদ্ধার্থ সিংহ

স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে প্রথমবার ফাঁসির দণ্ডে দণ্ডিত হলেন একজন মহিলা। ২০০৮ সালে প্রেমিকের সঙ্গে স্বড়যন্ত্র করে নিজের পরিবারের ৭ সদস্যকে নির্মমভাবে খুন করেন উত্তরপ্রদেশের শবনম।

ইংরেজি ও ভূগোলের ছাত্রী শবনম উত্তরপ্রদেশের গ্রামের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়াতেন। সেই সময় সেলিম নামের একটি ছেলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে তিনি। কিন্তু তাঁদের বিয়েতে মত ছিল না শবনমের পরিবারের।
তখনই দু’জনে মিলে সংসার পাতার জন্য সেলিমের সঙ্গে আলোচনা করে খুনের পরিকল্পনা করেন শবনম।

পরিকল্পনা মাফিক ২০০৮ সালের ১৫ এপ্রিল রাত্রে দুধের সঙ্গে মাদক জাতীয় কিছু একটা মিশিয়ে পরিবারের সদস্যদের খাওয়ান শবনম। তার পর সবাই ঘুমিয়ে পড়লে নিজের বাবা, মা, দুই ভাই, দুই বৌদি এবং ১০ মাসের ভাইপোকে খুন করেন তিনি।

এই ঘটনা জানাজানি হলে তদন্তের মোড় অন্য দিকে ঘুরিয়ে দেওয়ার জন্য শবনম বলেন, আমার কোনও ভাইয়ের সঙ্গে নিশ্চয়ই কারও খুব শত্রুতা ছিল। আমার ধারণা, এটা সে রকমই কোনও দুস্কৃতীদের কাজ।

পরে জেরার চাপে পড়ে সত্যি কথা স্বীকার করে নেন তিনি। ২০১০ সালে শবনম এবং সেলিমকে মৃত্যুদণ্ডের সাজা দেয় নিম্ন আদালত। পরে তাঁরা সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন। সেখানেও শবনমের আর্জি খারিজ হয়ে যায়।

এমনকী রাজ্যপাল ও রাষ্ট্রপতির কাছেও প্রাণভিক্ষার আবেদন করেছিলেন শবনম, কিন্তু সেটাও খারিজ হয়ে যায়। শবনমের আইনজীবীর বক্তব্য, কিউরেটিভ পিটিশন দাখিল করতে পারে শবনম।

শবনম এখন রয়েছেন রামপুর জেলার সংশোধনাগারে। একমাত্র মথুরাতেই মহিলাদের ফাঁসির ব্যবস্থা রয়েছে। শবনমকে রামপুর থেকে মথুরায় নিয়ে যাওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

ক’দিন আগেই ঠিক হয়েছে, দুনিয়া জুড়ে তোলপাড় ফেলা সব চেয়ে আলোচিত, নির্ভয়া কাণ্ডের দোষীদের যে ফাঁসুড়ে ফাঁসি দিয়েছিলেন সেই পবন জল্লাদই শবনম ও সেলিমকে ফাঁসি দেবেন। সেই ফাঁসুড়ে ইতিমধ্যেই মথুরা জেল ঘুরে দেখে এসেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here