শুভেন্দু অধিকারির নাম না করে তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের  ফের কটাক্ষ # বাবার রাজনৈতিক দলের পদাধিকারীর সুযোগ নিয়ে আমি রাজনীতিতে আসিনি # আমি নন্দীগ্রামের সিবিআইয়ের অর্ডার না করালে রাজনৈতিক নেতারা ঘর থেকে বেরোতে পারত না # অর্ডার হওয়ার পরই সব ঘর থেকে বেরিয়েছিল # দলে থেকে দলের কোনও জনপ্রতিনিধিকে সমালোচনা করলে বুঝতে হবে অন্য দলের সঙ্গে তাঁর আঁতাত অনেকটা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে

0
40

নিজস্ব সংবাদদাতা #  শুভেন্দু অধিকারির নাম না করে তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের  ফের কটাক্ষ…………..

১) বাবা কোনও রাজনৈতিক দলের পদাধিকারী এই সুযোগ নিয়ে কিন্তু আমি রাজনীতিতে আসিনি।

২) আমি কিন্তু বড় হয়েছি অনেক পরিশ্রম করে।

৩) আমি যদি নন্দীগ্রামে সিবিআইয়ের অর্ডার না করাতাম তবে রাজনৈতিক নেতারা ঘর থেকে বেরোতে পারত না।

৪) ওই অর্ডার হওয়ার পরই সব ঘর থেকে বেরিয়েছিল।

৫) এগুলো মনে রাখতে হবে।

৬) একার দ্বারা কোনওদিন কিছু হয় না।

৭) আর দলে থেকে দলের কোনও জনপ্রতিনিধিকে যদি সমালোচনা করে তবে বুঝতে হবে যে অন্য দলের সঙ্গে তাঁর আঁতাত অনেকটা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে।

শুক্রবার হুগলির বলাগড়ে একটি জনসভা থেকে নাম না করে সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়কে জবাব দেন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারি………..সিপিএমের প্রয়াত সাাংসদ অনিল বসু যখন কাউকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করে অশালীন কথা বলতেন তখন কিন্তু হুগলির মানুষ তা সমর্থন করেননি। আজ যদি কোনও বর্তমান জনপ্রতিনিধিও আমাকে বা আমার পরিবারকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করে। আপনারা কি তাঁকে সমর্থন করবেন? আপনারা কি এই কালচার সমর্থন করেন?‌’ সভায় উপস্থিত জনগণের কাছ থেকে সমস্বরে উত্তর আসে, ‘‌না’‌।

দিন কয়েক আগেই শুভেন্দু অধিকারিকে আক্রমণ করে  সাংসদ কল্যাণ  বলেছিলেন, ‘‌৪টি মন্ত্রিত্ব পেয়েছিস, ৪টে চেয়ারে আছিস। কত পেট্রোল পাম্প করেছিস। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় না থাকলে পুরসভার বাইরে আলু বিক্রি করতিস।’‌

নন্দীগ্রাম দিবসের দু’‌দিন পরে এক সভায় কল্যাণ কটাক্ষ করেন, ‘‌হিম্মত থাকে তো ছেড়ে দিয়ে চলে যাও। ৪৮ ঘণ্টা বিপ্লব দেখানোর পর এখনও মন্ত্রীত্বের লোভ কেন?‌ এখনও বোধহয় জানানো হয়নি মুখ্যমন্ত্রী হবে নাকি উপ মুখ্যমন্ত্রী হবে।

শুক্রবার সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়কে পাল্টা দিলেন শুভেন্দু। সভায় তিনি কারও নাম না করে বলেন, ‘‌প্রাক্তন সাংসদ অনিল বসু যখন কাউকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করে অশালীন কথা বলতেন তখন কিন্তু হুগলির মানুষ তা সমর্থন করেননি। আজ যদি কোনও বর্তমান জনপ্রতিনিধিও আমাকে বা আমার পরিবারকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করে। আপনারা কি তাঁকে সমর্থন করবেন? আপনারা কি এই কালচার সমর্থন করেন?‌’ সভায় উপস্থিত জনগণের কাছ থেকে সমস্বরে উত্তর আসে, ‘‌না’‌।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here