২১ জুলাইয়ের সমাবেশ থেকে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা ব্যানার্জি বিজেপিকেই রাজনৈতিক গুরুত্ব দিয়ে বাংলার মাটিতে প্রতিষ্ঠিত করলেন, বিজেপির ব্ল্যাকমানিকে টার্গেট করে তৃণমূলের কাটমানিকে জিইয়ে রাখলেন, ভাইপোর হুঙ্কার, ব্যালটে ভোট হলে বিজেপি ভো-কাট্টা # বেঙ্গল ওয়াচের জন্য কলম ধরলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক শ্যামলেন্দু মিত্র

0
680

শ্যামলেন্দু মিত্র # ২১ জুলাইয়ের সমাবেশ থেকে বিজেপিকে বড় বেশি গুরুত্ব দিলেন মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা ব্যানার্জি। বিজেপির রাজনৈতিক গুরুত্বকে প্রতিষ্ঠা করলেন বিরোধিতা করতে গিয়ে।

কাটমানি প্রসঙ্গ জিইয়ে রেখে তার অভিমুখ বিজেপির দিকে ঘুরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন মমতা। তৃণমূলের উদ্দেশ্যে বললেন, কাটমানি চাইতে এলে বলুন, আগে ব্ল্যাকমানি ফেরত দিন। বলুন গরিবের উজ্জালার কাটমানি ফেরত দিন।

এদিনের সমাবেশ থেকে তিনি দলের অস্বচ্ছতা ও অসততা নিয়ে একটি বাক্য খরচ করেননি।
পুরনো তৃণমূলিরা ধরে নিয়েছিলেন, দলনেত্রী বলবেন, কাটমানি নিপাত যাক। ভরাট হয়ে যাওয়া পুকুর ও জলাশয় আবার ফিরিয়ে দেওয়া হবে।

যারা ১৯৯৮ সাল থেকে মাটি কামড়ে তৃণমূল দলটা করেছেন,তারা দলনেত্রীর কথায় হতাশ। পুরনো কর্মীদের কথা একবারও উচ্চারণ করলেন না। শুধুই বিজেপির বিরোধিতা। এর ফলে বিজেপির মাটিকেই উনি শক্ত করে দিলেন। আর ইভিএম নয় ব্যালটে ভোট,এটা বাস্তবসম্মত নয়। ব্যালটের ভোট কিরকম হয় বাম আমলের অভিজ্ঞতা বাংলার মানুষের আছে।

সব মিলিয়ে এবারের ২১ জুলাইয়ের সভা যেন বিজিপিকে গুরত্ব দেওয়ার সমাবেশ হয়ে দাঁড়ায়।
মমতা ব্যানার্জি ২১ জুলাইয়ের সমাবেশ থেকে যা যা বলেন তা একলপ্তে দেখে নেওয়া যাক।
১) পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা ভালো চলছে এটা বিরোধীদের কৃতিত্ব। বিজেপি,তোমাদের কৃতিত্ব নয় ৷
২) রাজীব গান্ধী ৪০০ সিট পেয়ে ক্ষমতায় এসেছিলেন ৷ কিন্তু তিনি ভালো করে সংসদ চালাতে পারেননি ৷
৩) বিজেপি দিল্লিতে ৫ বছর সরকার চালাতে পারবে না। দুবছর যায় কিনা দেখুন।
৪) বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ না করলে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় হতে হবে ৷ আমার কাছে লিখিত নথি রয়েছে, সুদীপদাকে বলা হয় একজন প্রভাবিত রাজনীতিবিদের নাম বলুন ৷
৫) তৃণমূল কংগ্রেস গরিবের দল ৷ তাই তাকে টিকটিকিতেও লাথি মারে ৷ আর বড়লোকের দলকে প্লেনেও ধাক্কা মারে না ৷
৬) কতগুলি চিংড়ি, ল্যাটা মাছ বলছে কাটমানি ফিরিয়ে দাও ৷ আমিও বলছি, ব্ল্যাকমানি ফিরিয়ে দাও ৷ পাঁচতারা পার্টি অফিস ৷ ব্ল্যাকমানি ফিরিয়ে দাও, কাটমানি ফিরিয়ে দাও ৷
৭) প্রতিটি অঞ্চলে, বুথ অফিসে মিটিং-মিছিল করুন ৷ ৮) পুরুলিয়ায় জমি বিক্রি করে টাকা দিয়েছে বিজেপি৷ আমি সব পার্টিকে বলছি, দুর্নীতি নয় ৷
৯) চোরেদের সর্দার, ডাকাতদের সর্দার বলছে না কি কাটমানি ফিরিয়ে দাও ৷ আগে ১৫ লাখ টাকা ব্ল্যাকমানি ফিরিয়ে দাও ৷ ১০) ভোটের সময় কত টাকা নিয়েছ ? ফিরিয়ে দাও, ফিরিয়ে দাও ।
১১) আমরা ২৯ জুলাই বড় প্রোগাম চালু করব ৷ জনসংযোগ কর্মসূচিকে একেবারে বুথস্তর পর্যন্ত নিয়ে যাব ৷ আমি চাই,তৃণমূল কংগ্রেস উন্নত চরিত্র গঠন করুক ৷
১২) হিন্দু-মুসলমান বিভাজন করছে । উত্তরপ্রদেশ ১০ জনকে খুন করেছে । উত্তরপ্রদেশ,অসমে আমাদের প্রতিনিধিদলকে ঢুকতে দেয়নি ৷
১৩) ত্রিপুরায় ৮৫ শতাংশ আসন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতেছে ৷ তখন সংবাদমাধ্যম একটুখানি খবর প্রকাশ করেছে ৷
১৪) আর আমাদের পঞ্চায়েতে একটু হতেই কত বলল সংবাদমাধ্যম ৷
১৫) তৃণমূল করলে এক পাতা, অন্য দল করলে নেই কোনও পাতা ৷
১৬) যারা কেন্দ্রীয় সরকারের সমান মাইনে চান, তারা কেন্দ্রীয় সরকারে চলে যান ।
১৭) কেশপুরে কে ঝামেলা করছে? সিপিএম হার্মাদরা । সবকটা এখন বিজেপি । বিজেপি সেজে সেখানে শেলটার নিয়েছে । বিজেপির কোনও ক্ষমতা নেই । কখনও কংগ্রেসের দিকে উঁকি মারে ।
১৮) আমি জানি, তৃণমূলের প্রতি অনেকের ক্ষোভ রয়েছে । কেন জানেন? এটা প্রান্তিক চাষি, শ্রমিক, গ্রাম থেকে আসা কালো কালো চেহারার মানুষের দল ২০) এক বিজেপি নেতা বলছেন, আমাদের নেতাদের গাড়ি থেকে টেনে নামাবেন ৷
২১) বিজেপি নেতাদের বলছি তৈরি থাকুন, আগামীদিনে মিটিং-মিছিল করবেন না? এর জবাব তৃণমূল দিলে ঠেকাতে পারবেন তো? মানুষ জবাবদিলে পারবেন না ৷
২২) এই তো উত্তরপ্রদেশে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী গেলেন ৷ তাঁকে বিজেপি সরকার ঢুকতে দেয়নি ৷
২৩) ইভিএম প্রতারণা করে, চিটিং করে, কোটি কোটি টাকা খরচ করে ভোট করেছে বিজেপি ৷ কটা আসন জিতেছে। তাতেই এত কথা বলছে ৷ এখনও মেজরিটি তো আমাদের ৷ আমাদের পার্টি অফিস দখল করার চেষ্টা করছে ৷ আজও গুড়াপে বাস থেকে টেনে নামিয়েছে ৷
২৪) ঘুঁটে পোড়ে, গোবর হাসে ৷ মেঘ দেখে কেউ ভয় পাস না, আড়ালে তার সূর্য হাসে ৷ আজ দেখুন সূর্য তেজ দিচ্ছে ৷ কারণ সূর্ষ বলছে, আমি তোমাদের তেজ দিচ্ছি ৷ উঠে দাঁড়াও, লড়াই করো ৷
২৫) কেউ সভাস্থান ছেড়ে যাবেন না ৷ পৌনে দুটোর মধ্যে ছেড়ে দেব ৷ অনেক জায়গায় ট্রেন বন্ধ করে দিয়েছে ৷ তৃণমূল কর্মীদের আটকানো হচ্ছে ৷
২৬) ২১ জুলাইয়ের শহিদ পরিবার, সিঙ্গুরের শহিদ পরিবার, নেতাইয়ের শহিদ পরিবার সবাই এসেছেন ৷ আমি আসতে আসতে দেখলাম, ২/৩লাখ লোক রেড রোডে দাঁড়িয়ে রয়েছে ৷ তারা আসতে পারছে না ৷ মনে হচ্ছে এ যেন আর একটা ব্রিগেড হচ্ছে ৷
সমাবেশে অভিষেক বন্দোপাধ্যায় বলেন, ব্যালটে ভোট হলে বিজেপি ভোকাট্টা হয়ে যাচ্ছে ৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here