এবার জুনিয়র ইঞ্জিনিয়াররাও ধর্নায় বসলেন পিএসসি ভবনের সামনে

0
71

মদনমোহন সামন্ত, ২৫ জুন, কলকাতা : লোকসেবা আয়োগ অর্থাৎ পাবলিক সার্ভিস কমিশন অধীনস্থ জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার নিয়োগ প্রক্রিয়া পরীক্ষার পরীক্ষার্থী ইঞ্জিনিয়াররা আজ মঙ্গলবার লোকসেবা আয়োগ পশ্চিমবঙ্গের পিএসসি ভবনের সামনে ধর্নাতে বসেন।

ডব্লিউবিপিএসসি সমস্ত নিয়োগ প্রক্রিয়া সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করতে ব্যর্থ, দুর্নীতিগ্রস্ত পিএসসি মুর্দাবাদ, প্রত্যেক পরীক্ষার আনসার কী প্রকাশ করতে হবে, বেকার যুবকদের ভবিষ্যৎ নিয়ে ছিনিমিনি খেলা হচ্ছে কার স্বার্থে পিএসসি জবাব দাও, স্টপ করাপশন, বখাটে নই আমরা ইঞ্জিনিয়ার চাকরি পাবো না, চোরের রাজ্যে করছি বাস পিএসসিতে চলছে দুর্নীতি রাজ, পিএসসি চেয়ারম্যানকে আইএএস অথবা ডব্লিউবিসিএস যোগ্যতাসম্পন্ন হতে হবে, আজ ইঞ্জিনিয়ারদের রাস্তায় বসিয়ে দিল বাংলা, ২০৫৩ জনকে ইন্টারভিউতে ডাকার পরেও মাত্র ১২০ জনকে নিয়োগ করা হয়, ডাক্তারদের ধর্না এখন অতীত এবার ইঞ্জিনিয়ারদের পালা প্রভৃতি লেখা পোস্টার নিয়ে তারা স্লোগান দেন। তাদের দাবি , এক : তিন অনুপাত অনুসরণ করে আরো ৫৬৫ জনের দ্বিতীয় তালিকা অবিলম্বে প্রকাশ করতে হবে।

শূন্য পদের সংখ্যা অনুযায়ী নিয়োগ করতে হবে। পিএসসিকে দুর্নীতিমুক্ত করতে হবে। শূন্য পদের সংখ্যা বৃদ্ধি করে ন্যায্য অনুপাতে নিয়োগ করতে হবে। দ্বিতীয় তালিকা প্রকাশ না হওয়া পর্যন্ত জুনিয়ার ইঞ্জিনিয়ার ইলেকট্রিক্যাল নিয়োগ করা চলবে না। “পিএসসি অফিস অভিযান” পরিচালিত হয়েছে ‘পিএসসি দুর্নীতিমুক্ত মঞ্চ’-র মাধ্যমে। শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি রোডে পাবলিক সার্ভিস কমিশনের পিএসসি ভবনের সামনে ধর্নাতে বসেন প্রার্থীরা। তাদের মূল কার্যক্রম পিএসসি ভবন অভিযান করে তারা সেখানে অবস্থানে বসার পর তাদের চার জনের এক প্রতিনিধিদল পিএসসি চেয়ারম্যানের সঙ্গে দেখা করে স্মারকলিপি জমা দিতে যান। স্মারকলিপিতে তারা দাবি জানাচ্ছেন জেইই, ডব্লিউবিসিএস এবং অন্যান্য পরীক্ষাগুলিতে শূন্যপদগুলি গেজেটে প্রকাশ করতে হবে। ১৭জুন ২০১৯ এ প্রকাশিত ইলেকট্রিক্যাল-এর ফল অনুযায়ী বর্তমান প্যানেল বাতিল করে নতুন প্যানেল গঠন করতে হবে। লিখিত পরীক্ষায় ২০৫৩ জন পাস করা প্রার্থীদের মধ্যে ৩:১ অনুপাত বজায় রাখতে হবে। মাত্র ১২০ জন কেন মনোনীত হল তার জবাব চাইছেন তারা। প্রত্যেক পরীক্ষার আনসার কী প্রকাশ করতে হবে এক মাসের মধ্যে। পরীক্ষার উত্তরপত্র পরীক্ষা করার অধিকার দিতে হবে এবং ফলাফল ওয়েবসাইটে আপলোড করতে হবে। প্রত্যেক পরীক্ষার উত্তরপত্র ওয়েবসাইটে দিতে হবে। শীর্ষ আদালতের রায় অনুযায়ী সংরক্ষণ ৫০ শতাংশের বেশি হওয়া উচিত নয়। সমস্ত পরীক্ষা পদ্ধতি সম্পন্ন করতে হবে এক বছরের মধ্যে। চেয়ারম্যানকে আইএএস বা ডব্লিউবিসিএস হতে হবে। আরটিআই ২০০৫ অধিনিয়ম অনুযায়ী আরটিআই-এর দরখাস্ত করার সুযোগ দিতে হবে। তাদের দাবিগুলির সাত দিনের মধ্যে উত্তর না পেলে ভবিষ্যতে তারা আরও বড় আন্দোলনে যেতে বাধ্য হবেন বলেও জানিয়েছেন পিএসসি দুর্নীতিমুক্ত মঞ্চ’র নেতৃত্বরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here