নিজস্ব প্রতিনিধি:  উত্তরপ্রদেশের বারানসী জেলার ভাদোহী এলাকায় কার্পেট তৈরির কারখানায় ভয়াবহ বিস্ফোরণে মৃত্যু হল মালদার ৯ জন শ্রমিকের।  ওই কারখানায় মালদার ১৫ জন শ্রমিক কাজ করতে গিয়েছিলেন।

মৃত শ্রমিকেরা মালদা জেলার মানিকচক থানার এনায়েতপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বাজারপাড়া, মোমিনপাড়া, কামালপুর এবং মংলাপাড়া এলাকার বাসিন্দা। গত দেড় মাস আগে ওই গ্রামের ১৫ জন শ্রমিক বারানসী এলাকায় কার্পেট তৈরি কারখানায় শ্রমিকের কাজের জন্য গিয়েছিলেন।

এদিকে জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে মৃতদের একটি তালিকা দেওয়া হয়েছে,  মৃতেরা হলেন আতাউর মোমিন (৩৭), আব্দুল গাফফার (৪০), মোহাম্মদ  সুভান আনসারী (৩৮),   ইসরাফিল মোমিন (৩৫),  আবদুল কালাম মোমিন (৩২),  আলমগীর মোমিন (৩৩), আজাদ মোমিন (৩১),  আব্দুল কাদির (৩৪) এবং মনসুর সেখ (৩৬)।  এই ঘটনাটি জানাজানি হতেই মানিকচকের এনায়েতপুর গ্রামে কান্নায় ভেঙে পড়েন মৃতদের পরিবার।

কার্পেট তৈরির কারখানায় মালদার নয় শ্রমিকদের মৃত্যুর খবর জেলা প্রশাসনের কাছে এসে পৌঁছাতেই এনায়েতপুর গ্রামে যান মানিকচকের বিডিও সুরজিৎ পন্ডিত এবং আইসি কুনাল কান্তি দাস।  পরে জেলা পুলিশ সুপার অর্ণব ঘোষ গ্রামে গিয়ে মৃতের পরিবারের সঙ্গে কথা বলেন।

এনায়েতপুর এলাকার মৃত শ্রমিকদের পরিবারের সদস্য রাজিয়া বিবি,  বাজিদ শেখ , আমজাদ মোমিনদের বক্তব্য , ” আমরা ভাবতেই পারছি না কিভাবে এত বড় ঘটনা ঘটে গেল।  কী ভাবেই বা বোমা বিস্ফোরণ হল।  আর কারাই বা কারখানায় বোমা মারল।  যদিও এই সম্পর্কে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকেও কিছু জানানো হয় নি।  এলাকায় পুলিশ ও প্রশাসনের টিম এসেছে । আমাদের সঙ্গে তাঁরা কথা বলেছে “।
এদিকে গ্রামবাসীদের বক্তব্য,  পুরো ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিক উত্তরপ্রদেশ সরকার।  পাশাপাশি মৃতদেহগুলি যাতে সুরক্ষিতভাবে মালদায় নিয়ে আসা হয় তারও ব্যবস্থা করা হোক প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

মালদা জেলা পরিষদের সভাধিপতি গৌড় চন্দ্র মন্ডল এনায়েতপুর গ্রামে মৃতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করার পাশাপাশি তাদের সব রকম সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন।
মালদার জেলাশাসক কৌশিক ভট্টাচার্য  বলেন , মানিকচকের ৯ জন শ্রমিকের মৃত্যুর খবর পেয়েছি । প্রকৃত ঘটনা সম্পর্কে এখনো পরিষ্কার করে কিছু জানা যায় নি। তবে জেলা পুলিশ ও প্রশাসনের একটি দল ইতিমধ্যে উত্তরপ্রদেশে যাওয়ার জন্য রওনা দিচ্ছে।

পাশাপাশি মানিকচকের এনায়েতপুর গ্রামেও প্রশাসনের টিম পাঠানো হয়েছে।  সঠিক খবর রাখতে ওই গ্রামে পুলিশ ক্যাম্প বসানো হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here