কলেজ দর্শনে গিয়ে অস্বস্তিতে মন্ত্রী

0
42

কলেজ পরিদর্শনে এসে ছাত্র-শিক্ষক বাদানুবাদ দেখে চরম অস্বস্তিতে পড়লেন রাজ্যের দুই মন্ত্রী। শনিবার কোচবিহার পলেটেকনিক কলেজ পরিদর্শনে আসেন কারিগরি শিক্ষা দফতরের মন্ত্রী পূর্ণেন্দু বসু ও উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। তাঁদের সাথে ছিলেন কোচবিহার জেলা পরিষদের পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ আব্দুল জলিল আহমেদ।

তাঁদের সামনেই কলেজের অধ্যক্ষ ও ছাত্রদের একাংশ একে অপরের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ তুলতে শুরু করেন। কোন ক্রমে দুপক্ষকে বুঝিয়ে পরিস্থিতি সামাল দিতে দেখা যায় কারিগরি শিক্ষা মন্ত্রীকে।

পরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “শিক্ষক-ছাত্রছাত্রীদের সম্পর্ক হচ্ছে পিতা-পুত্র বা পিতা- কন্যার মত। সেটাকে পুনরুজ্জীবিত করতে হবে। কলেজের যে রুম ছাত্ররা দখল করে রেখেছে, সেটাকে যাতে বন্ধ করে দেওয়া হয়, তার জন্য অধ্যক্ষকে বলা হয়েছে। তিনি সেটা আজকেই বন্ধ করে দেবেন।”

কলেজ নির্বাচন গুলোতে যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়, সেটাকে মাথায় রেখে কলেজ ইউনিট ও ছাত্র সংগঠন করা সরকার একরকম বাধ্য হয়ে বন্ধ করে রেখেছে বলে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, “একটা কাউন্সিল তৈরির জন্য শিক্ষা দফতর ও শিক্ষা মন্ত্রী কাজ করছেন। তার একটা প্রস্তাবও তৈরি হয়েছে।

যা কার্যকর হলে ছাত্রছাত্রীরা তাঁদের দাবিদাবা ওই কাউন্সিলের মাধ্যমে তুলে ধরতে পারবেন।”কোচবিহার পলেটেকনিক কলেজে দীর্ঘদিন ধরে পরিকাঠামো উন্নয়ন, পানীয় জল, অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ দূর করা সহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে শিক্ষক ও ছাত্রদের মধ্যে একটা বিরোধ চলে আসছে।

গতকালকেও একই অভিযোগ তুলে কলেজ গেটের সামনে বিক্ষোভ দেখায় ছাত্রারা।
অন্যদিকে অধ্যক্ষ মন্ত্রীর সামনে অভিযোগ করে জানান, কলেজে প্রাক্তন ছাত্ররা এসে সমস্যার সৃষ্টি করছে। কলেজের একটি রুম জোড় করে দখল করে রেখেছে। এরপরেই দুই মন্ত্রী প্রায় একযোগে জানিয়ে দেন, বর্তমান ছাত্রছাত্রীরাই কলেজের সমস্যা নিয়ে অধ্যক্ষের সাথে কথা বলবেন।

প্রাক্তনদের কোন সভা হলে তখন তারা সেখানে যোগ দিতে পারেন। অধ্যক্ষের সাথে কথা বলতে হলেও অনুমতি নিয়ে আসতে হবে তাঁদের।এছাড়াও কলেজের বেশ কিছু উন্নয়নের বিষয় নিয়েও এদিন কথা হয়। প্রাচীর নির্মাণ, খেলার মাঠের উন্নয়ন, ওয়ার্কসপের পরিকাঠামো উন্নয়ন, কলেজ চত্বরে থাকা পুকুর সংস্কার করার প্রস্তাব দেওয়া হয়।

লিখিত প্রস্তাব পেলে ওই উন্নয়ন মূলক কাজ গুলো নিয়ে দুই দফতর থেকেই পর্যায় ক্রমে কাজ করা হবে বলে মন্ত্রীরা জানিয়ে দেন। কারিগরি শিক্ষা মন্ত্রী বলেন, “কোচবিহারের এই পলেটেকনিক কলেজ অনেক পুরানো। কিন্তু যা দেখালাম ভালো ভাবে কাজ হয় নি। উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী আছেন। তিনি দেখবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন। আমাদের দফতরে প্রস্তাব আসার পর পর্যায়ক্রমে কাজ গুলো করা হবে। যাতে কলেজটাকে আরও ভালো করা যায়। সেই চেষ্টাও করা হবে।” এদিন পলেটেকনিক কলেজ ছাড়াও কোচবিহার আইটিআই কলেজ পরিদর্শনেও যান কারিগরি শিক্ষা মন্ত্রী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here