স্কুলের মিড ডে মিলের টাকা নয়ছয়

0
68

শিব শংকর চ্যাটার্জ্জীঃদক্ষিণ দিনাজপুরঃ  স্কুলের মিড ডে মিলের টাকা নয়ছয় করার অভিযোগ স্কুলেরই সহশিক্ষক  নিখিল চন্দ্র মন্ডল-এর বিরুদ্ধে। সেই সঙ্গে অভিযোগ  স্কুলের মিড ডে মিলের চাল বিক্রি করে দেওয়ার করে টাকা আত্মসাৎ করার  অভিযোগ।

ঘটনাটি দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার হিলি ব্লকের ফতেপুর বালুপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের। দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার হিলি ব্লকের ফতেপুর বালুপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের মোট ছাত্র সংখ্যা ৭৫৫ জন। এরমধ্যে পঞ্চম শ্রেণী থেকে অস্টম শ্রেণী পর্জ্যন্ত ছাত্র সংখ্যা ৩৫৩ জন। অস্থায়ী, কারগরি শিক্ষক শিক্ষিকা সহ বিদ্যালয়টিতে মোট ২৩ জন শিক্ষক শিক্ষিকা রয়েছে।

বিদ্যালয়ের অধিকাংশ সহশিক্ষকদের অভিযোগ বিগত ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে বিদ্যালয়ের সহশিক্ষক নিখিল চন্দ্র মন্ডল মিড মে মিলের খাবারের মান ধুকতে থাকে। এরপরই বিদ্যালয়ের সহ শিক্ষকরা মিড ডে মিলের হিসাব খতিয়ে দেখতেই সহ শিক্ষকদের চক্ষু চড়কগাছ।

বিদ্যালয়ের অধিকাংশ সহ শিক্ষকদের অভিযোগ অভিযুক্ত সহ শিক্ষক নিখিল চন্দ্র মন্ডল স্কুলের মিড ডে মিলের টাকা থেকে মুদির দ্রব্যাদি ক্রয় বাবদ খরচ দেখিয়ে নিজের ছেলেকে ৭০৭৭ টাকার চেক প্রদানের মাধ্যমে স্কুলের টাকা হস্তান্তর করেন। এমনকি স্কুলের মিড ডে মিলের চাল অন্যত্র বিক্রি করে দেওয়ার অভিযোগ সহকারী শিক্ষক নিখিল চন্দ্র মন্ডলের বিরুদ্ধে। ঘটনায় বিদ্যালয়ের সহ শিক্ষকরা ইতিমধ্যেই তদন্ত দাবী করে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার জেলা শাসক দীপাপ প্রিয়া পি-র কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে।

বিদ্যালয়ের সহ শিক্ষক ও বিদ্যালয়ের স্টাফ কাউন্সিলের সম্পাদক অনিল চন্দ্র বর্মণ অভিযুক্ত নিখিল চন্দ্র মন্ডলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন স্কুলের মিড ডে মিলের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে নিখিল চন্দ্র মন্ডল স্কুলের মিড ডে মিলের প্রায় ২ লক্ষ টাকা নিজের পকেটে পুড়েছেন। এদিন বিদ্যালয়ের সহ শিক্ষক অনিল চন্দ্র বর্মণ আরও অভিযোগ করে বলেন যখন স্কুলের মিড ডে মিলের দায়িত্ব অভিযুক্ত শিক্ষক নিখিল চন্দ্র মন্ডলের কাছ থেকে হস্তান্তর করা হয় সেই সময় তারা লক্ষ্য করেন স্কুলের মিড মিলের চাল অভিযুক্ত শিক্ষক নিখিল চন্দ্র মন্ডল ১২ টাকা কেজি দরে রেশন ডিলারের কাছে বিক্রি করেছেন।

এর পাশাপাশি অভিযুক্ত শিক্ষকের এহেন কর্মকান্ডে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নারায়ণ ভট্টাচার্য-র প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ মদত রয়েছে বলে বিস্ফোরক অভিযোগ করেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here