মেদিনীপুরের লোকেরা এমনিতেই জেদি # অপমান সহ্য করেন না # মমতা ব্যানার্জির পরে বঙ্গপ্রদেশে শুভেন্দু অধিকারিই ক্রাউড-ক্যাচার # মাস লিডার # মমতা ব্যানার্জির পরে শুভেন্দু অধিকারিই বঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী পদে যোগ্য প্রার্থী # বেঙ্গল ওয়াচের জন্য কলম ধরলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক শ্যামলেন্দু মিত্র

0
81
# বেঙ্গল ওয়াচের জন্য কলম ধরলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক শ্যামলেন্দু মিত্র #
।।।।।।।।।  শ্যামলেন্দু মিত্র ।।।।।।।।।।
মেদিনীপুরের লোকেরা  এমনিতেই  জেদি।।
মেদিনীপুরের লোকেরা অপমান সহ্য করেন না।।
তার বড় প্রমাণ বাম আমলে নন্দীগ্রাম আন্দোলন।।
এবারে তার প্রমাণ সেই নন্দীগ্রামের বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারি।।
কাথির অধিকারি বাড়িকে চেনেন না এমন লোক পাওয়া মুশকিল ভূ-মেদিনীপুরে।।
অবিবাহিত শুভেন্দু আধিকারি নিজ মুখেই জানিয়ে দিয়েছেন তিনি অকৃতদার থাকবেন।
মেদিনীপুরের দুই অকৃতদার সুসন্তান সতীশ সামন্ত ও  সুশীল ধাড়া তার  আদর্শ।
শুভেন্দু অধিকারি সাংসদ ছিলেন।
ছিলেন বিধায়কও।
একাধিক সরকারি ক্ষমতায় ছিলেন।
আজকাল তো ভোগ সর্বস্ব জীবন।
সেই ক্ষেত্র শুভেন্দু অধিকারি এক ব্যতিক্রমী দৃষ্টান্ত তৈরি করলেন।
অতীতে অনেকেই দল ছেড়ে ভিন্ন দল গড়েছেন।  সকলেই সফল হননি।
ব্যতিক্রম মমতা ব্যানার্জি।
মাত্র ১০ বছর ক্ষমতাসীন হয়েই তিনি দলের রাশ রাখতে পারলেন না।
তার আমলেই দলে চিড়।
শুধু শুভেন্দু অধিকারি নন। এক দল তৃণমূলীয় জনপ্রতিনিধি দল ছাড়ার জন্য উদ্যত।
এর মূলে  দলনেত্রীর নতুন প্রজন্মকে দায়িত্ব তুলে দেওয়ার ঘোষণা।
কী এমন পরিস্থিতি হল যে বহিরাগত অবঙ্গভাষী এক ভোট কুশলীকে ২০২১এর বৈতরণী পার হওয়ার জন্য নিযুক্ত করতে হল!
যেখানে মমতা ব্যানার্জিই এক এবং একক ভোট-ক্যাচার ছিলেন।
মমতা ব্যানার্জির পরে বঙ্গপ্রদেশে শুভেন্দু অধিকারিই ক্রাউড-ক্যাচার। মাস লিডার।
মমতা ব্যানার্জির পরে শুভেন্দু অধিকারিই বঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী পদে যোগ্য প্রার্থী।
ধোপ দুরস্ত  চেহারায় কোনও আজেবাজে ছাপ নেই।
মাত্র ৫০ বছর বয়স।
রাজনীতিতে বিকশিত হওয়ার এটাই সঠিক সময়।
তাই তিনি ঝুকি নিতেই পারেন।
সর্বভারতীয় বিজেপি অনেকদিন থেকেই বঙ্গ রাজ্যের জন্য মুখ খুজছিলেন।
অনেক নাম নিয়েই আলোচনা হয়।
শেষে দুয়ে দুয়ে চার।
 সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে তমলুক লোকসভা কেন্দ্রের তিনি সাংসদ ছিলেন।
 তিনি একজন সাম্মানিক স্নাতক।
তিনি প্রাক্তন কেন্দ্রীয় গ্রামোন্নয়ন রাষ্ট্রমন্ত্রী শিশির অধিকারির পুত্র।
পরিবহন  সহ একাধিক রাজ্য দফতরের মন্ত্রী ছিলেন।
একাধিক সরকারি বিভাগের কাজের অভিজ্ঞতা রয়েছে।
তাই শুভেন্দু অধিকারিকে নিয়েই আগামী দিনের বঙ্গরাজনীতি আবর্তিত হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here