বেঙ্গল ওয়াচ # সাহিত্যের পাতা # দ্বাদশ সংখ্যা # কবিতা # মৃন্ময় মাজী # শংকর দেবনাথ # জগদীশ মন্ডল # মোনালিসা পাহাড়ী # উত্থানপদ বিজলী

0
86
।।।।।।।কবিতা।।।।।।।
।।।।।।।।।।।।।।।।নীল ছায়া
মৃন্ময় মাজী।।।।।।।।।।।।।।।
কত শত পথ দিগন্তে মিশেছে
ফেলে গেছে  নীল ছায়া,
স্বপ্নের শেকড় শেষ জল ছুঁয়েছে
জেনে গেছে সব মায়া।
পথ ভোলা পাখি নীল রং মেখে
ঠোঁটে নেয় খড় কুটো,
ওই দূর মাঠে একা বুড়ো গাছ
আশা ধরে এক মুঠো।
নীচে পড়ে থাকা বাঁকা কিছু ঘাস
নীল জলে মুখ দেখে,
জীবন পথের ছেড়া কার্পেটে
ব্যথাগুলো রাখে ঢেকে।
———-
।।।।।।।।।।।মধ্যদিনের পদ্য
শংকর দেবনাথ।।।।।।।।।।।
বুকের ভেতর নীরব দুপুর ঝাপুরঝুপুর ভাব-সাঁতার,
স্বরূপ ধরে অরূপ হাসে হৃদয় দ্যাখে আবছা তার।
প্রাণের পুরে মগ্নগানের লগ্ন আনে স্বর অন্যের,
ডাক পেল কী গল্পরা আজ কল্পসবুজ অরণ্যের?
সৃজনব্যাকুল নিজন দুপুর ছন্দনুপুর অন্তরে—
বনপলাশে কোন বাউলা দেয় রাঙিয়ে মন তোর এ’।
দুগ্ধবতী মুগ্ধতাতে চোখের নীলে অনন্ত—
মনন মাঝে খনন কাজের পরম অণুর রণন তো।
টাপুরটুপুর আলোর দুপুর ছড়ায় কীসের রং গোপনে!
নীরব ভাষার কী রব ভাসায় উদাস বায়ু সংগোপনে!
স্বপ্ন হেসে পদ্য ফোটায় মধ্যদিনের বৃক্ষে যে,
যায় না বোঝা শব্দহীনার বাজায় বীণা ঠিক কে যে!
জীবন-দুপুর নিভন্ত-পুর উপুড় বোধীর ভাণ্ড রে,
মদির ধারার নদীর গহন কে বাঁধে ওই গান-ডোরে?
কাব্যবোধের নাব্য রোদে তন্দ্রাদেবী মূর্চ্ছা যায়,
কবির পাশে গভীর এসে গন্ধে হৃদয়পুর সাজায়।
———-
।।।।।।।।।।।চলনবিলের চন্দ্রাবতী
জগদীশ মন্ডল।।।।।।।।।।।।।
চলনবিলের চন্দ্রাবতী
রূপকথাতে মোড়া
মেঘের বরণ চুলগুলো তার
সারা মাথা জোড়া।
মুখখানা তার হীরের দ্যুতি
চোখ টানাটানা
ঠোঁটের উপর ভেসে বেড়ায়
শিউলির আলপনা।
সোনার জরি শাড়ি দিয়ে
ঢাকা সারা গা
রিনিক ঝিনিক মলটি বাজে
গোলাপ ধোয়া পা।
যাবে নাকি দেখতে তাকে
পাখির ডাকে জাগে
চিঠি লিখে জানাতে হয়
দশটি দিন আগে।
হাঁটতে হাঁটতে পৌঁছে গেলে
চন্দ্রাবতীর দেশে
দেখতে পাবে একখানা মেঘ
আসছে ভেসে ভেসে।
———-
।।।।।সেলাই শিল্প ও সম্পর্ক নামা
মোনালিসা পাহাড়ী।।।।।।।।।।।।।
জীবনে অযাচিত শীতকাল এলে
খুলে যায় সম্পর্কের খোলস
অতঃপর পড়ে থাকে জরাজীর্ণ ম‍্যাড়মেড়ে
সম্পর্কনামার কাঠামো
সম্পর্ক হল অনুঘটক
কখনো জারণ, কখনও বিজারণ
বাইরে থেকে বোঝার উপায় নেই
ভেতরের কাঠিন্য কতটা
ওপরের লালিমা কতখানি…
ভাল থাকতে গেলে
সম্পর্ক সেলাই করতে জানতে হয়
নাহলে থিকথিকে পৃথিবীতে
বড্ড একার ব‍্যালকনি
জোৎস্না মাখা দুপুর রাত
খানখান সম্পর্ক কুচি।
———-
।।।।।।।।।নতুন ছাতার দাদা
উত্থানপদ বিজলী।।।।।।।।।।।
বদল করে ছাতা
বাঁচাতে চায় মাথা
ধান্ধাবাজে যাচ্ছে ছুটে
সাজছে নতুন দাদা।
যে সব দাদা আসে
বড্ড ভালবাসে
ফিকফিকিয়ে হাসে কেবল
সবাই ভাবে সাদা।
কে না চেনে তাদের
মুন্না কিংবা কাদের…
আমরা যারা চিনি না সব
এক নম্বর গাধা।
সিমেন্ট-বালির দোকান
দিচ্ছে মুলে দু’কান
বাধ্য হয়ে গেলেন যদি
গচ্চা এ বার চোকান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here