বাংলায় বাঙালি-অবাঙালি তত্ত্ব নিয়ে নামবে তৃণমূল # বহিরাগতরা যে অবাঙালি, প্রাথমিকভাবে সেটাই রাজ্যের মানুষকে মনে করিয়ে দেবে তৃণমূল # তৃণমূলমন্ত্রী ব্রাত্য বসু শুক্রবার নেতাজির সঙ্গে মমতার উদাহরণ টানলেন # নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুকে যেভাবে কোণঠাসা করা হয়েছিল, সেভাবেই এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কোণঠাসা করার চেষ্টা হচ্ছে # নেতাজির সঙ্গে আমি মমতার তুলনা করছি না # উদাহরণ দিচ্ছি মাত্র # বাঙালিকে শাসন করার জন্য উত্তর ও পশ্চিম ভারত থেকে অবাঙালিদের বাংলায় পাঠানো হচ্ছে

0
48

নিজস্ব সংবাদদাতা # তৃণমূলমন্ত্রী ব্রাত্য বসু শুক্রবার নেতাজির সঙ্গে মমতার উদাহরণ টানলেন।

ব্রাত্য বসু বলেন, নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুকে যেভাবে কোণঠাসা করা হয়েছিল, সেভাবেই এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কোণঠাসা করার চেষ্টা হচ্ছে।

এই কথা বলার পাশাপাশি ব্রাত্য বসু বলেন………….

১) নেতাজির সঙ্গে আমি মমতার তুলনা করছি না।

২) উদাহরণ দিচ্ছি মাত্র।

তিনি বলেন, বাঙালিকে শাসন করার জন্য উত্তর ও পশ্চিম ভারত থেকে অবাঙালিদের বাংলায় পাঠানো হচ্ছে।

ব্রাত্য  বসু বলেন………..

১) বহিরাগত কর্তৃক বাংলাকে আক্রমণ করা হচ্ছে।

২).বাংলাকে না বোঝা, বাংলার সংস্কৃতি না বোঝা, বাংলার নাড়ি না বোঝা কিছু লোক বাংলায় ঘোরাঘুরি করছেন।

৩) এই বহিরাগত তাণ্ডব বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙারই একটা পরের ধাপ।

৪) আরএসএসের প্রধান পদে তো কোনওদিন কোনও বাঙালিকে বসানো হয়নি।

৫) হয় তেলুগু ব্রাহ্মণ বা মরাঠি ব্রাহ্মণকে বসানো হয়েছে ওই পদে।

৬)  রামমন্দিরের আশেপাশে ১৮টি মন্দির রয়েছে।

৭) মতুয়া মহাসঙ্ঘের প্রধান হরিচাঁদ গুরুচাঁদ ঠাকুরের মন্দির তো সেখানে নেই।

৮) অবাঙালিরা বা বিশ্বের যে কোনও প্রান্তের মানুষকে বাংলা চিরকাল স্বাগতই জানায়।

৯) কিন্তু এখন যা হচ্ছে, তা বাঙালিকে নিয়ন্ত্রণ করা এবং কোণঠাসা করার চেষ্টা।

১০) যেভাবে অবাঙালিদের দিয়ে সুভাষ বসুকে কোনঠাসা করা হয়েছিল, সেই একই ভাবে উত্তর ও পশ্চিম ভারত থেকে লোক পাঠানো হচ্ছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ন্ত্রণ করতে।

১১) বাংলার মানুষ কি এটা মেনে নেবেন?

১২) নেতাজিকে যে ভাবে কংগ্রেস ছাড়তে হয়েছিল, নেতাজির অন্তর্ধানের ৫ দশক পর মমতাকেও সেভাবে কংগ্রেস ছাড়তে হয়েছিল বলে ব্রাত্য মন্তব্য করেন।

১৩) এদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও সুভাষ বসুর মতোই নিজস্ব আজাদ হিন্দ বাহিনী গঠন করেন।

১৪) যার নাম তৃণমূল কংগ্রেস।

১৫) আমাদের মাথার উপর অন্য রাজ্যের নেতারা এসে বসবেন, শাসন করবেন আর বলবেন, রবীন্দ্রনাথের জন্ম বোলপুরে!

১৬) আদিবাসী নেতার গলায় মালা দিয়ে বলবে,, বিরসা মুণ্ডার গলায় মালা দিয়েছেন!

১৭) এগুলো মেনে নেওয়া হবে না।

আমেরিকার হবু প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ক্যাবিনেটে বাঙালি অরুণ মজুমদারের সম্ভাব্য অন্তর্ভুক্তির কথা মনে করিয়ে দিয়ে ব্রাত্য বসু  বলেন, বাঙালির গুরুত্ব আমেরিকাও বোঝে। কিন্তু দিল্লি বোঝে না। মোদি বোঝেন না।

তিনি বলেন………

১) ৭ বছর ধরে কেন্দ্রে সরকার চালাচ্ছে।

২) অথচ সেখানে একজনও বাঙালি পূর্ণমন্ত্রী নেই কেন?

৩) মতুয়া ঠাকুরবাড়ির সদস্য জিতলেও তাঁকে পূর্ণমন্ত্রিত্ব কেন, কোনও মন্ত্রিত্বই দেওয়া হয়নি!

বাংলায় বাঙালি-অবাঙালি তত্ত্ব নিয়ে নামবে তৃণমূল। বহিরাগতরা যে অবাঙালি, প্রাথমিকভাবে সেটাই রাজ্যের মানুষকে মনে করিয়ে দেবে তৃণমূল।

ব্রাত্য বসু বলেন………

১) আমরা বিশ্ববাংলার কথা বলি।

২) বাংলায় কোনও বাঙালি-অবাঙালি-হিন্দু-মুসলিম-শিখ ভেদাভেদ করা হয় না।

৩) হবেও না।

৪) কিন্তু এখন বাংলায় বহিরাগতরা এসে তাণ্ডব চালাচ্ছে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here