বর্তমানে ‘উম্মাহ্’ শব্দটির অপ্রাসঙ্গিকতা ও কিছু কথা # বিশিষ্ট সাংবাদিক ও বিশ্লেষক মোহাম্মদ সাদউদ্দিন

0
50

বর্তমানে ‘উম্মাহ্’ শব্দটির অপ্রাসঙ্গিকতা ও কিছু কথা/ মোহাম্মদ সাদউদ্দিন

———————————–

‘উম্মাহ্’ একটি আরবি শব্দ ।

এই শব্দটি মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে বহুচর্চিত ।

এই শব্দটিকে মুসলিমরা ব্যবহার করে বিশ্ব ব্যাপী সম্প্রদায়ের জন্য।

‘উম্মাহ’ শব্দটির অর্থ  বিশ্বব্যাপী অনুসারী।

মুসলিমরা মনে করে , মুসলিমরা এক বিশ্বব্যাপী ধর্মের অনুসারী হওয়ায় এক শরীরের অংশ।

একজন মুসলমানকে “শাহাদা-এ- মুসলিম”(আল্লাহ্ ছাড়া কোনো ঈশ্বর নেই এবং মহম্মদ তার প্রেরিত দূত)—- এই বিশ্বাসে আস্থা রাখতে হবে এবং একজন ধর্মনিষ্ঠ মুসলমান হিসাবে তার জীবনযাপনের চেষ্টা করতে হবে।

আর ঐ আদর্শের যারা অনুসারী যারা হবেন তারাই ‘উম্মাহ্’-র যোগ্য ।

কিন্তু বাস্তবে অন্য কথা বলছে।

‘উম্মাহ’ এখন রাজনৈতিক সংহতির কার্যকর অস্ত্র হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে ।

‘উম্মাহ্’ এখন একটি শূন্য দ্যোতক, যাকে কেন্দ্র করে একটি সর্বজনীন পরিচয়ের দাবিতে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

এটা আমাদের কাছে একদিকে দুঃখজনক, অন্যদিকে দুর্ভাগ্যজনক।

কথাটা দুঃখের হলেও সত্য যে,মুসলিম বিশ্বে বহুজাতিক আর্থিক, রাজনৈতিক,ব্যবসায়িক ও ধর্মীয় কর্মকাণ্ড কয়েক শতাব্দী ধরে চলে আসছে।

বিশ্বায়িত উত্তর আধুনিক যুগে বহু সংস্কৃতির উথান ধীরে ধীরে  ‘উম্মাহ্’-র ধারণাকে লঘু করে দিচ্ছে ।

রাজনৈতিক সরকারে বিভিন্ন আকারে ইসলামী ‘উম্মাহ্’- র ঐতিহাসিক অস্তিত্ব থাকলেও, বিশ্বায়নপুষ্ট জাতীয়তাবাদ ভিত্তিক আধুনিক জগতে উম্মাহকে দৃঢ়ভাবে মোকাবিলা করেছে।

সমসাময়িক ভারতে ভারতীয় মুসলমান অর্থনীতি ও সংস্কৃতির বিশ্বায়নের জাতীয়তাবাদী প্রত্যুত্তর দিয়ে ‘উম্মাহ’-র ধারণাকে অপ্রাসঙ্গিক করে তুলেছে।

এটাই আমাদের কাছে দুর্ভাগ্যজনক।

‘উম্মাহ’-র আন্তর্জাতিক ধারণায় বিশ্বাসীদের মনে রাখা উচিত যে,পাঠগত সূত্র মুসলমানদের দেশপ্রেমের অনুমুতি দেয়।

“দেশপ্রেম ঈমানের অঙ্গ”।

মহম্মদ (সাঃ)-এর এই বাণীও আজ ভূলুন্ঠিত হয় কোথাও কোথাও ।

‘উম্মাহ’-র ধারণাও ক্রমশ সংকুচিত ও লঘু হয়ে যাচ্ছে ।

বিপদটা ঠিক এখানেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here