ডিসেম্বরেই হচ্ছে আর্টভার্স-এর চিত্রপ্রদর্শনী # সিদ্ধার্থ সিংহ

0
96

ডিসেম্বরেই হচ্ছে আর্টভার্স-এর চিত্রপ্রদর্শনী

সিদ্ধার্থ সিংহ

সব জল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে মুখ খুললেন শুভঙ্কর সিংহ। আর্টভার্সের সর্বময় কর্তা। তিনি জানালেন, সামনের মাসেই কলকাতার আই সি সি আর-এ আমরা আয়োজন করতে চলেছি একটানা তিন দিন ব্যাপী এক চিত্রপ্রদর্শনীর। সঙ্গে থাকবে ফটোগ্রাফি এবং ভাস্কর্য।

লকডাউন শুরু হওয়ার আগেই এ বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে গ্যালারি গোল্ডে প্রায় পঞ্চাশ জন চিত্রশিল্পী, আলোকচিত্রী এবং ভাস্কর শিল্পীর বিভিন্ন মাপের পঁচাশিটি শিল্পকর্ম নিয়ে আর্টভার্স শুরু করেছিল তাদের পথচলা।

সেখানে যেমন ছিলেন প্রফেশনাল শিল্পী, তেমনই ছিলেন নতুন প্রজন্মের এক ঝাঁক তরুণ শিন্পী। মূলত অয়েল, অ্যাক্রেলিক, রেখাচিত্র, মধুবনী, রেজিনা আর্ট এবং ভাষ্কর্য থাকলেও, ছিল জলরঙের চোখ ধাঁধানো ছবিও।

সে দিন প্রদীপ জ্বালিয়ে এই প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেছিলেন বিশিষ্ট শিল্পী ওয়াসিম কপূর, প্রাবন্ধিক নৃসিংহপ্রসাদ ভাদুড়ী, মহিলা কমিশনের চেয়ারম্যান এবং বাংলা টিভি সিরিয়ালের প্রাণপুরুষ লীনা গঙ্গোপাধ্যায়। উপস্থিত ছিলেন চিত্রশিল্পী যোগেন চৌধুরী, চিত্রশিল্পী তাপস কোনার, বিশিষ্ট চিত্রপরিচালক গৌতম ঘোষ-সহ আরও অনেকে।

যখন গোটা পৃথিবী জুড়ে ছবির বাজারে ভয়ানক মন্দা নেমে এসেছে, তখন এই ধরনের চিত্রপ্রদর্শনী করার সাহস পেলেন কী করে? এই প্রসঙ্গে আর্টভার্স-এর কর্ণধার শুভঙ্কর সিংহ, যিনি ইতিমধ্যেই ‘গভ : এনসিয়েন্ট এলিয়েন আর আ মিথ’ নামে একটি ঢাউস ইংরেজি বই লিখে গোটা বিশ্ব জুড়ে সাড়া ফেলে দিয়েছেন, যাঁর ছবি প্রদর্শিত হলেই বিদেশ থেকে শিল্পবোদ্ধারা এসে কিনে নিয়ে যান ছবি, এই মুহূর্তে যিনি বিগ বাজেটের দু’-দুটো ছায়াছবি করার জন্য অপেক্ষা করছেন, সেই শুভঙ্কর সিংহ বললেন— আমি বিশ্বাস করি, ঠিকঠাক ছবি যদি ক্রেতাদের সামনে তুলে ধরা যায়, ছবি বিক্রি হবেই। আজ না হোক কাল, কাল না হোক পরশু।

আমি বিশ্বাস করি, আর্টভার্সের নির্বাচিত ছবিগুলো বিক্রি হবেই। আর এই ভরসাই় আমাকে সাহস জুগিয়েছে এই প্রদর্শনী করার। আমার পাশে অনেকেই এসে দাঁড়িয়েছেন। আমাদের মাথার উপরে যখন হাত রেখেছেন যোগেন চৌধুরী, ওয়াশিম কপূর, চিত্রপরিচালক সন্দীপ রায়ের মতো জ্ঞানীগুনীরা, তখন আমরা সফল হবই।

সফল যে তাঁরা হবেনই, তার প্রমাণ পাওয়া গিয়েছিল প্রথম প্রদর্শনীতেই প্রায় পঞ্চাশ জন শিল্পীর ওই পঁচাশিটি শিল্প নিদর্শনে। সেখানে যেমন ধরা পড়েছিল, বিরহ, যন্ত্রণা, হিংসা, বিদ্বেষ, ষড়যন্ত্র। তেমনি ধরা পড়েছিল নিসর্গ, প্রেম, ফোটোগ্রাফির মতো কাজও।

প্রথম প্রদর্শনীটি অত্যন্ত সফল হওয়ায় এবং বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম সেটাকে গুরুত্ব দিয়ে খবর করায় অনেকেই আশাবাদী হয়েছিলেন, এ বার থেকে প্রতি মাসেই এ ধরনের প্রদর্শনী দেখা যাবে। কিন্তু তার পরেই লকডাউন ঘোষিত হওয়ায় সমস্ত গ্যালারিগুলো বন্ধ হয়ে যায়। ফলে স্থগিত রাখতে হয় সমস্ত আয়োজন। এ বার প্রদর্শনীর সিদ্ধান্ত মিতেই ইতিমধ্যেই এগিয়ে এসেছেন শতাধিক শিল্পী।

যে ভাবে প্রতিদিন ভারতের তো বটেই, পৃথিবীর অন্যান্য দেশ থেকেও সাড়া পাচ্ছি, তাতে আমরা অভিভূত। আমাদের ধারণা, এ বারের এই প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণকারী শিল্পীদের সংখ্যা হয়তো দুশোও ছাড়িয়ে যাবে। গত কালও পাকিস্তানের এক শিল্পী যোগাযোগ করেছিলেন।

তবে এ বার আমাদের পরিকল্পনা আছে, প্রদর্শনীকক্ষের একটি দেয়াল শুধুমাত্র প্রথিতযশা শিল্পীদের ছবি প্রদর্শনীর জন্য আলাদা ভাবে চিহ্নিত করা।

এটা করার একমাত্র কারণ, দর্শকেরা নিজেরাই দেখে বিচার করুন ওই সব খ্যাতনামা শিল্পীদের পাশাপাশি কীভাবে জায়গা করে নিচ্ছেন এই নতুন প্রজন্ম।

যদিও এই মহামারীর কারণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য এবং নিরাপত্তার খাতিরে একসঙ্গে পঁচিশ জনের বেশি প্রদর্শনীর কক্ষের ভেতরে ঢোকার অনুমতি দিতে আমরা অপারগ। তবু যাতে কোনও সমস্যা না হয়, একজন দর্শকও যাতে নিরাশ হয়ে ফিরে না যান‌, সে দিকে থাকবে আমাদের নজর।

ঢোকার মুখেই থাকবে স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা এবং যদি কেউ মাস্ক না পরে আসেন, আই সি সি আর-এর তরফ থেকে তাঁকে দেওয়া হবে মাস্কও।

এই প্রদর্শনী উপভোগ করার জন্য শিল্পবোদ্ধা হওয়ার কোনও দরকার নেই। শিল্পমনস্ক হলেই হবে। আর্টভার্সের দাবি, এই প্রদর্শনী না দেখলে‌ জীবনে একটা বড় অপ্রাপ্তি থেকে যাবে। কারণ আর্টভার্স-এর প্রদর্শনী মানেই শুধু শিল্পকর্ম নয়, তার চেয়েও অতিরিক্ত একটা কিছু। বিশেষ একটা কিছু। যা অন্য কোনও চিত্রপ্রদর্শনীতে দেখতে পাওয়া যায় না।

এ বারও এই প্রদর্শনীকেও প্রাণবন্ত করে তুলতে উদ্বোধনে হাজির থাকছেন কলকাতা তথা ভারতের সেরা বাঙালিরা।

আর্টভার্স-এর কর্ণধার শুভঙ্কর সিংহ আরও জানিয়েছেন, আগ্রহীরা এই কর্মযজ্ঞে শামিল হওয়ার জন্য আর্টভার্সের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন। আর্টভার্স-এর ফোন নাম্বার—
9874535704
ই মেল— artverseart@gmail.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here