জাপানে বিড়ালছানার চেয়েও সিংহের দাম কম # সিদ্ধার্থ সিংহ

0
15

জাপানে বিড়ালছানার চেয়েও সিংহের দাম কম

সিদ্ধার্থ সিংহ

জাপান যেহেতু প্রযুক্তি নির্ভর দেশ, তাই সেখানকার লোকদের রোজকার জীবনে ওতপ্রোত ভাবে জড়িত নানান অত্যাধুনিক প্রযুক্তি।

যার জন্য খুব সাদামাটা চিরকালীন বিনোদনগুলো থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন তাঁরা।

ওখানকার বাচ্চারাও আর আগের মতো মাঠে গিয়ে ফুটবল খেলে না।

পুকুরে ঝাঁপিয়ে পড়ে সাঁতার কাটে না। ঢিল ছুড়ে আম পারে না। পার্কে গিয়ে দোলনা চড়ে না।

ফলে মেলায় কোনও ভিড় হয় না। চিড়িয়াখানাগুলোতেও ভিড় তেমন চোখে পড়ে না।

এমনকী, বনের রাজা সিংহের প্রতিও ওখানকার বাচ্চাদের কোনও মুগ্ধতা নেই‌।

বন্যপ্রাণীর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ‘রেপ জাপান’-এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রাণী ব্যবসায়ী স্যুওশি শিরাওয়া জার্মান সংবাদ সংস্থা ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, জাপানে এখন সিংহ খুবই সস্তা।‌

প্রতিটি চিড়িয়াখানা ও বন্যপ্রাণী পার্কগুলোতে সিংহের চাহিদা আগে অনেক বেশি ছিল এবং সিংহকে সব চেয়ে বড় শিকারি হিসাবে দেখা হতো।

এখন সিংহের জনপ্রিয়তা অনেক কমে গেছে। যেখানে পোষা প্রাণী বিক্রির দোকানে একটি বিড়ালছানার দাম ৪০০,০০০ ইয়েন বা ৩,২৪৮ ইউরো৷

সেখানে একটি সিংহের দাম তার চার ভাগের এক ভাগেরও কম।

এখন একটি সিংহের দাম ১০০,০০০ ইয়েন বা ৯৬৬ ইউএস ডলার অর্থাৎ ৮১২ ইউরোর কমও হতে পারে।

এমনকী একদম বিনামূল্যে সিংহ দিয়ে দেওয়ার ঘটনাও প্রচুর রয়েছে বলে তিনি জানান।

টোকিও ইউনিভার্সিটির পরিবেশ বিষয়ক বিশেষজ্ঞ কেভিন শর্ট বলেন, সিংহ লালনপালন বেশ ব্যয়বহুল। সিংহের খিদে বেশি পায়। তা ছাড়া জাপানে সিংহের প্রধান খাদ্য মাংসের দামও অনেক বেশি।

তার থেকেও বড় কথা, সিংহ ছেড়ে রেখে পোষা যায় না। তার জন্য শক্তপোক্ত খাঁচার প্রয়োজন। তা ছাড়া শিশু সিংহ, মানে সিংহ শাবকরা দর্শকদের কাছে টানতে পারলেও প্রাপ্তবয়স্ক সিংহরা সে ভাবে মানুষকে কাছে টানতে পারছে না।

চিড়িয়াখানার প্রধান লক্ষ্য দর্শনার্থী। অথচ জাপানের জনসংখ্যা ক্রমশ কমার ফলে স্বাভাবিক ভাবেই দর্শনার্থীর সংখ্যাও প্রতিনিয়ত কমছে।

জনসংখ্যা কমার প্রবণতা এ রকম অব্যাহত থাকলে এই শতাব্দীর শেষের দিকে আরও ৫০ মিলিয়ন মানুষ কমে যাবে৷

শিশুদের নিয়ে তাদের তরুণ মা-বাবারাও আর চিড়িয়াখানা-মুখো হবেন না। তখন বাঘ-সিংহ রাখাটাই চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের কাছে মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়াবে।

এখন দাম কম হলেও মাঝেমধ্যে বাঘ-সিংহ তাও বিক্রি হচ্ছে। কিন্তু এর পরে ডেকে ডেকে বিনে পয়সায় দিলেও কেউ আর নেবে বলে মনে হয় না। কারণ বাঘ-সিংহ পোষাটাই জাপানে অত্যন্ত ব্যয় সাপেক্ষ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here